যৌথ নিরাপত্তা চুক্তি সংস্থার সদস্য দেশগুলি ইরানের উপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অথবা ইস্রাইলের আক্রমণের, যদি তা ঘটে, সম্ভাব্য পরিণতি অতিক্রমের জন্য সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা গ্রহণ করছে. এ সম্বন্ধে মঙ্গলবার “রিয়া নোভস্তি” সংবাদ সংস্থার দ্বারা আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন যৌথ নিরাপত্তা চুক্তি সংস্থার প্রধান সচিব নিকোলাই বার্দিউঝা. সেই সঙ্গে বার্দিউঝা উল্লেখ করেন যে, যৌথ নিরাপত্তা চুক্তি সংস্থা আশা করে যে, ইরানের উপর সামরিক আঘাত হানা হবে না, কারণ এ আক্রমণ গোটা অঞ্চলের জন্য কঠিন পরিণতি নিয়ে আসবে. বার্দিউঝা যোগ করে বলেন যে, সংস্থার সদস্য দেশগুলির প্রতিনিধিরা একাধিকবার পাশ্চাত্যের তরফ থেকে ইরানের উপর আক্রমণের সম্ভাবনা সম্পর্কে মত প্রকাশ করেছে. বার্দিউঝার কথায়, সংস্থার দেশগুলি উপলব্ধি করে যে ইরানের উপর আঘাত গোটা অঞ্চলের জন্য কঠিন পরিণতি নিয়ে আসবে এবং তা রাজনীতির দৃষ্টিভঙ্গী থেকে এবং সামরিক পরিস্থিতির দৃষ্টিভঙ্গী থেকে, এবং প্রতিবেশের পরিস্থিতি থেকে এবং উপবাসনের দৃষ্টিভঙ্গী থেকে. যৌথ নিরাপত্তা চুক্তি সংস্থা গঠিত হয়েছিল যৌথ নিরাপত্তার চুক্তির ভিত্তিতে, যা স্বাধীন রাষ্ট্রবর্গের দেশগুলি স্বাক্ষর করেছিল ১৯৯২ সালের ১৫ই মে. বর্তমানে এ সংস্থায় অন্তর্ভুক্ত আছে আর্মেনিয়া, বেলোরুশিয়া, কাজাখস্তান, কির্গিজিয়া, রাশিয়া, তাজিকিস্তান ও উজবেকিস্তান.