আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির পরিদর্শকদের প্রতিনিধিদল গত রাতে তেহেরানে পৌঁছেছেন, ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সম্পর্কে দু দিনের আলাপ-আলোচনার জন্য. এ সম্বন্ধে জানিয়েছে বিদেশী প্রচার মাধ্যম. প্রতিনিধিদলের প্রধান কর্তব্য হবে ইরানে পারমাণবিক অস্ত্র উত্পাদনের সম্ভাবনা সম্বন্ধে জানা. ২০১১ সালের নভেম্বরে আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সি ইরানে পারমাণবিক প্রকল্পগুলি পরিদর্শনের পরে এ সম্ভাবনা বাদ দেয় নি যে, ভবিষ্যতে পারমাণবিক বোমা সৃষ্টির জন্য ইরানের নির্দিষ্ট ক্ষমতা আছে. ইরানের নেতৃবৃন্দ বহুবার জোর দিয়ে বলেছেন যে, ইরানের পারমাণবিক গবেষণা নিছক শান্তিপূর্ণ লক্ষ্য সাধনের জন্য নির্দেশিত. একই সঙ্গে পাশ্চাত্যে গুরুতর উদ্বেগ জাগিয়েছে ২০ শতাংশ পর্যন্ত ইউরেনিয়াম পরিশোধনের কর্মসূচি শুরু করা সম্পর্কে তেহেরানের ঘোষণা, কারণ আগে সে ইউরেনিয়াম পরিশোধন করত ৩ শতাংশ পর্যন্ত. ইরান আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির প্রতিনিধিদলের সফরে শুধু সম্মতিই দেয় নি, তার পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে “ছয় দেশের” (রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচটি স্থায়ী সদস্য দেশ ও জার্মানির) সাথে আলাপ-আলোচনা পুনরারম্ভ করার প্রস্তুতির কথাও জানিয়েছে. ইরান ও “ছয় দেশের” মাঝে আলাপ-আলোচনার আগের রাউন্ড নিষ্ফলভাবে শেষ হয়েছে ২০১১ সালের জানুয়ারীতে.