রাশিয়াতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সময়ের আগেই ভোট দানের সময় শুরু হয়েছে. বল্গা হরিণ পালক, নাবিক, মেরু অভিযাত্রী ও ভূ বৈজ্ঞানিক, সোনার খনির শ্রমিক আর সেই সব লোকেরাই, যাঁরা ৪ঠা মার্চ ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে উপস্থিত হতে পারবেন না, তাঁরাই দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের নির্বাচনের কাজ আগে থেকেই করতে পারবেন – ১৭ ই ফেব্রুয়ারী থেকে ৩ রা মার্চ.

রাশিয়ার কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনে এখন থেকেই শুরু হয়েছে গরম সময়. ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়ায় আগে থেকে ভোট নেওয়া খুব একটা বিশাল সংখ্যক লোকের জন্য করতে হয় না, তাতে সাধারণতঃ যোগ দেন শতকরা ১শতাংশ রুশ নির্বাচক, তবুও সন্দেহ নেই যে, এটা নির্বাচন কমিশনের কর্মীদের জন্য সবচেয়ে সমস্যার কাজ. হরিণে টানা স্লেজ গাড়ী চেপে, সর্বত্র যেতে পারে এমন গাড়ী চেপে, হেলিকপ্টারে চড়ে তাঁরা দেশের সবচেয়ে দূরের ও কঠিন সব জায়গায় পৌঁছে যাবেন. শুধু যেতে আসতেই অনেক সময়ে কয়েকদিন লেগে যায়. সেখানে ঝড়, বরফ পড়ার হিম হাওয়া বাধ্য করে কয়েকদিন ধরে সুযোগ খুঁজতে ও খেয়াল রাখতে কখন বার হওয়া সম্ভব, আবহাওয়ার উপযুক্ত দিনক্ষণের অপেক্ষায়. কিন্তু ভোট নেওয়ার জন্য বয়ে নিয়ে যাওয়া বাক্স অবশ্যই ভোটদাতাদের কাছে পৌঁছবে আর কয়েক ঘন্টার জন্য তাইগা অঞ্চলের অগম্য অরণ্যের কোন বন কুটির অথবা খোলা সমুদ্রের উপরে কোন জাহাজের কেবিন হয়ে দাঁড়াবে সরকারি ভাবে ভোট গ্রহণ কেন্দ্র.

প্রত্যেক রুশ ইচ্ছুক ভোট দাতার জন্যই আইন এই ধরনের সম্ভাবনা তৈরী করে রেখেছে, এই কথা উল্লেখ করে রাজনৈতিক গবেষণা কেন্দ্রের উপ সভাপতি সের্গেই মিখিয়েভ বলেছেন:

“আইন অনুযায়ী সময়ের আগেই ভোট গ্রহণ এই কারণে করা হয় যে, যাঁরা ভোটের দিনে ভোট দিতে পারবেন না, তাঁরা যেন আগে ভোট দিতে পারেন. ভোটের জন্য নির্দিষ্ট দিনের দুই সপ্তাহ আগে থেকে এই সুযোগ দেওয়া হয়ে থাকে. এই ধনের নিয়ম শুধু রাশিয়ার আইনেই নেই, এটা সর্বজনীন আইনের মধ্যেই পড়ে:.

রাশিয়াতে আগে থেকে ভোট নেওয়ার এলাকার মধ্যে পড়ে সুদুর প্রাচ্য, সাইবেরিয়া ও উরাল পর্ব্বত মালার এলাকা, উত্তরের অঞ্চল গুলি, এই কথা উল্লেখ করে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের সদস্য সিয়াবশাখ শাপিয়েভ বলেছেন:

“রুশ প্রজাতন্ত্রের রাজ্য গুলির মধ্যে দুর্গম স্থানের জন্য আলাদা করে তালিকা রয়েছে, বর্তমানে ৮৩টি রাজ্যের মধ্যে শুধু ৩৭ টি জায়গাকে দুর্গম বলে তালিকায় রাখা হয়েছে”.

রাশিয়া নির্বাচকরা সময়ের আগেই ভোট দিতে পারছেন দেশের বাইরেও. এর আগে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন ৫৮ টি দেশে এই রকমের ভোট দানের ব্যবস্থা করেছে, প্রাথমিক ভাবে মুসলিম দেশ গুলিতে, যেখানে রবিবার ছুটির দিন নয়. প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী প্রায় ৮০ হাজারের বেশী রুশ নাগরিক, যাঁরা দেশের বাইরে থাকেন, তাঁরা সময়ের আগেই ভোট দেবেন. আর সব মিলিয়ে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য ৯৬ হাজার কেন্দ্র খোলা হবে রাশিয়া মধ্যে ও দেশের বাইরে ১৪৭টি দেশে ৩৮৪টি কেন্দ্র খোলা হতে চলেছে.