বিশ্ব বিখ্যাত রুশ মহিলা টেনিস খেলোয়াড় মারিয়া শারাপোভা বিয়ে করছেন. তাঁর বাছাই করা পাত্র স্লভেনিয়ার বাস্কেট বল খেলোয়াড় আলেকজান্ডার ভ্যুয়াচিচ. নিজের কনের কাছে প্রস্তাব ভ্যুয়াচিচ গত বছরেই করেছিলেন, কিন্তু বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক হয়েছে এই কয়েকদিন আগেই. ১০ই নভেম্বর ২০১২ সালে তাঁদের আনুষ্ঠানিক ভাবে বিয়ে হবে.

    প্রাথমিক ভাবে দেখলে মনে হতে পারে যে, এই যুবক যুবতীরা নিজেদের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করার জন্য খুব একটা তাড়াহুড়ো করছে না, কারণ নভেম্বর মাস আসতে এখনও প্রায় সারা বছর বাকি, কিন্তু দেখা গিয়েছে যে, এই রকমের সময় ঠিক করার পিছনে দুই খেলোয়াড়েরই খুবই ঘন রুটিনের জন্যই হয়েছে. বিয়ের দিন এমন ভাবে বাছা হয়েছে, যাতে বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা বাছাই টেনিস খেলোয়াড় ও আমেরিকার এনবিএ প্রতিযোগিতায় খেলা বাস্কেট বল খেলোয়াড়ের খেলা বন্ধ করতে না হয়. এখানে মজার ব্যাপার হল, কবে বিয়ে হবে, তার তারিখ বর কনে ঠিক করেন নি, করেছেন তাঁদের ম্যানেজাররা. সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী মারিয়া শারাপোভার দশ জন ম্যানেজার ও আলেকজান্ডার ভ্যুয়াচিচ এর এজেন্ট অনেক দিন ধরে বিয়ের তারিখ নিয়ে আলোচনা করেছেন. প্রসঙ্গতঃ এই সব কারণেই বর এমনকি ইস্তাম্বুলে একটি ভিলা ভাড়া করেছিলেন.

    কিছু খবর অনুযায়ী প্রথমে বাস্কেট বল খেলোয়াড়ের প্রতিনিধিরা মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে অনুষ্ঠান করার কথা বলেছিল. কিন্তু কনে পক্ষ এই সময় প্রথমেই বাতিল করেছে, কারণ এই সময়েই প্যারিসে গ্র্যান্ড স্ল্যাম টুর্নামেন্টের একটি অন্যতম ফ্রেঞ্চ ওপেন অনুষ্ঠিত হবে, যা শারাপোভার পক্ষে এখনও জেতা সম্ভব হয় নি. অলিম্পিকের পরেই আগষ্ট মাসে  দুই সপ্তাহ জুড়ে মধুচন্দ্রিমায় যাওয়া, এটাও টেনিস খেলোয়াড়ের ম্যানেজাররা মানতে পারেন নি, যাঁরা স্বপ্ন দেখছেন লন্ডন অলিম্পিকের সোনা জয়ের. তাই ঠিক হয়েছে নভেম্বর মাসেই বিয়ে হবে, যখন টেনিস সিজন শেষ হয়. যদিও এই কথা সত্য যে, এই সময়ে তুরস্কে বাস্কেট বল প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত সময়, তাও খেলোয়াড় বরকে দুই সপ্তাহের জন্য নিজের দল এফেস পিলসেন ছেড়ে আসতে হবে. কিন্তু ভ্যুয়াচিচ, অবশ্যই এটা মেনে নেবেন.

0    প্রসঙ্গত এই রকম কানাকানি রয়েছে যে, শারাপোভার বাবা প্রথমে নিজের মেয়ের বর নিয়ে খুবই সন্দেহ প্রবণ ছিলেন. তাঁর বেশী পছন্দ ছিল মেয়ের আরও এক প্রেমিক – আমেরিকার টেলিভিশন চ্যানেলের কর্তার ছেলে চার্লি এবেরসল. কিন্তু মারিয়া এই ক্ষেত্রে নিজের মনের জোর দেখিয়েছেন, আর যদিও বাবার সঙ্গে ঝগড়া করতে হয়েছে, তাও ভ্যুয়াচিচ মশাইকেই নিজের জন্য কর্তা ঠাউরেছেন.