রাশিয়ায় প্রাক-নির্বাচনী প্রচার ক্রমশঃই জোরদার হয়ে উঠছে. ৪ঠা ফেব্রুয়ারী থেকে সরকারীভাবে শুরু হওয়া প্রাক-নির্বাচনী প্রচারের আওতায় শাসকদলের সমর্থকেরা এবং বিরোধীরা জনসভার আয়োজন করেছিল. ৫ জন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থীর সবাই তাদের কর্মসূচী পেশ করেছেন, একই সঙ্গে প্রতিদ্বন্দীদের সমালোচনা করতেও ভোলেননি.

      প্রতিরক্ষার সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি হল আক্রমণ, আর দুইজনে মিলে একসাথে কাউকে আক্রমণ করলে, সেটা আরও জোরদার হয়. সেইজন্যেই দেশের দুই বৃহত্তম বিরোধী পার্টি – কমিউনিষ্ট পার্টি এবং লিবেরাল-ডেমোক্রেটিক পার্টি মনোনীত প্রার্থী যথাক্রমে গেন্নাদি জুগানভ ও ভ্লাদিমির ঝিরিনোভস্কি দূরদর্শন চ্যানেলে পরস্পরের সাথে নিজেদের কর্মসূচী নিয়ে বিতর্কের পরিবর্তে দুইজনে মিলে শাসক কর্তৃপক্ষ, বিশেষতঃ রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী ভ্লাদিমির পুতিনের নীতির কড়া সমালোচনা করেছেন

     পুতিন সারা সপ্তাহ ধরে তার বিভিন্ন সাক্ষাত্কারে, বক্তৃতায়, সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রবন্ধে তার সম্ভাব্য সমর্থকদের কাছে নিজস্ব কর্মসূচী সবিস্তারে বর্ণনা করেছেন. মানবতাবাদী-রাজনৈতিক ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ ভ্লাদিমির স্লাতিনোভের মতে  সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রধানমন্ত্রীর প্রবন্ধগুলি এবং তারপরে সমাজে তার বক্তব্য নিয়ে আলোচনা অত্যন্ত সফল প্রয়াস. –

     ঐ প্রবন্ধগুলি, বিশেষতঃ অর্থনৈতিক সংস্কার প্রসঙ্গে ও সর্বশেষ প্রবন্ধ, যেখানে রাজনৈতিক ব্যবস্থার সংস্কারসাধনের কথা বলা হয়েছে, তা ক্ষুব্ধ মধ্যবিত্ত শ্রেণীর প্রতি উত্সর্গীত. পুতিন ঐ প্রবন্ধগুলিতে দেখিয়েছেন, যে মধ্যবিত্ত শ্রেণী যারা যারজন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছে, সেই চলতি ব্যবস্থার সংস্কারসাধন করতে তিনি প্রস্তুত.

      রাশিয়ার শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদের কংগ্রেসে ভ্লাদিমির পুতিন উচ্চস্তরের ব্যবসায়ীদের বরাবরের মতন অসত ব্যক্তি-মালিকানার প্রসঙ্গ ভুলে যাওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন এবং ৯০-এর দশকে যে সব রাষ্ট্রীয় কল-কারখানা অসত উপায়ে হস্তগত করা হয়েছিল এবং যেখান থেকে প্রচুর মুনাফা কামানো হয়েছে, তার জন্য এককালীন আর্থিক চাঁদা দেওয়ার সুপারিশ করেছেন. তাছাড়া প্রধানমন্ত্রী পুতিন রাষ্ট্রীয় সংস্থাগুলির জন্য আইনকানুন নিখুঁত করারও প্রস্তাব দিয়েছেন.

     আরেক রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী শতকোটিপতি মিখাইল প্রখোরভ রাশিয়ার অর্থনীতিকে মদত দেবার জন্য সংখ্যালঘু ধনীদের সাহায্য চেয়েছেন. –

      আমি স্বেচ্ছামুলক সামাজিক প্রকল্পের প্রস্তাব দিচ্ছি. আমরা সবাই আমাদের আয়ের ১ শতাংশ এবং আমাদের সব শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকে রোজগারের ০,২% অর্থ সামাজিক তহবিলে জমা দেবার প্রস্তাব দিচ্ছি. তাছাড়াও, আমরা কিছু কিছু সামাজিক সমস্যা সমাধানের দায়ভার নিজেদের কাঁধে নিতে পারি. যেমন ক্যান্সার ও হৃদরোগ নিয়ে যেসব গবেষণাগার কাজ করে, তাদের চালানোর কর্তব্য. আমরা যে কোনো প্রকল্প বাস্তবায়িত করতে পারি এবং কেবলমাত্র এইভাবেই মানুষের আস্থা অর্জন করা সম্ভব.

     রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে প্রতিকূল অবস্থা ‘ন্যায্য রাশিয়া’ পার্টির প্রার্থী সের্গেই মিরোনভের, যিনি কমিউনিষ্ট পার্টির সাথে অভিন্ন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেবার লক্ষ্যে আলাপ-আলোচনার জন্য প্রস্তুত. বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রাক-নির্বাচনী প্রচারকালে এরকম বিজ্ঞপ্তি আত্মহত্যার সমান. রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী ভ্লাদিমির পুতিনের দল মস্কোয় বিশাল জনসভার আয়োজন করতে চলেছে আগামী ২৩শে ফেব্রুয়ারী “পিতৃভূমিকে রক্ষা করবো” - এই শিরোনামে. আর বিরোধীরা আগামী ২৬শে ফেব্রুয়ারী মস্কোয় গোটা রিং রোড জুড়ে “সত নির্বাচন চাই” - এই শ্লোগান দিয়ে হাতে হাত ধরে শোভাযাত্রা করবে.