আরব রাষ্ট্রলীগের দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আজ কায়রোয় জাতিসংঘের সাথে যৌথভাবে সিরিয়ায় পর্যবেক্ষকদের পাঠানোর বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে. কায়রোয় সিরিয়ায় পর্যবেক্ষকদের পাঠানোর পরিপ্রেক্ষিত ছাড়া সিরিয়ায় সাম্প্রতিক ঘটনাবলী এবং কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক উপায়ে হিংসাত্মক কার্যকলাপ থামানোর ব্যাপারেও আলোচনা হবে. গতকাল হোমস শহরে বিদ্রোহীদের তথ্য অনুযায়ী, সংঘর্ষে ৩৫ জন নিহত হয়েছে. সিরিয়ার সংবাদ মাধ্যমগুলি জানিয়েছে, যে গত শনিবার সশস্ত্র সন্ত্রাসবাদীরা একজন সামরিক চিকিত্সাকর্মীকে হত্যা করেছে. আশা করা যাচ্ছে, যে আরব রাষ্ট্রলীগের সদস্য দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে সিরিয়ায় বিরোধীদল হিসাবে সিরীয় জাতীয় পরিষদকে স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়েও আলোচনা হবে. রাশিয়া ও চীন জাতিসংঘে তাদের প্রস্তাবে গত ৪ঠা ফেব্রুয়ারী ভেটো দেওয়ার পরে আরব রাষ্ট্রলীগকে অতঃপর সিরিয়ায় পরিস্থিতি স্বাভাবিকীকরনের জন্য নতুন পদক্ষেপ খুঁজে বের করতে হবে. ঐ প্রস্তাবে রাষ্ট্রপতি বাশার আল-আসাদকে দেশের শাসনক্ষমতা উপ-রাষ্ট্রপতির হাতে অর্পণ করার আহ্বাণ জানানো হয়েছিল. এর ঠিক পরেই পারস্য উপসাগরীয় এলাকার দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠক আয়োজিত হবে, যারা এই সপ্তাহে তাদের প্রতিনিধিদের সিরিয়া থেকে ডেকে পাঠিয়েছে. সৌদি আরব উপোরক্ত উভয় সংস্থার সদস্য,  তারা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে খসড়া প্রস্তাব বিলি করেছে, যা আরব রাষ্ট্রলীগ প্রস্তাবিত খসড়ার অনুরূপ. সেখানে আবার বলা হচ্ছে, যে রাষ্ট্রপতি বাশার আল-আসাদকে পদত্যাগ করতে হবে এবং দেশে বিরোধীদের অংশগ্রহণ সহ জাতীয় মোর্চার সরকার গঠণ করা দরকার. ঐ প্রস্তাব নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদে আগামীকাল আলোচনা হওয়ার কথা. রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী গেন্নাদি গাতিলভ বলেছেন, যে রাশিয়া এই প্রসঙ্গে আলোচনা করতে দেবে না, কারন ঐ প্রস্তাব ভারসাম্যহীন.