মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন পোস্ট সংবাদপত্র প্রকাশ করেছে যে,ইরাকে মার্কিন সামরিক বাহিনী ফিরে যাওয়ার পরেও প্রচুর সিআইএ গুপ্তচর রাখা হয়েছে,যারা এই দেশে প্রশাসনের পরিবর্তন খেয়াল করছে এবং আল-কায়দা দলের কাজকর্ম খর্ব করছে.আফগানিস্তানেও একই ভাবে এই সংস্থার গুপ্তচররা থেকেই যাবে (গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠার ও আভ্যন্তরীণ বিষয়ে অনুপ্রবেশ না করার জন্য বোধ হয়).আফগানিস্তানে আবার সামরিক বাহিনী চলে গেলে কাবুলের সিআইএ ঘাঁটি এই দেশে বিশেষ বাহিনীর সঙ্গে সহযোগিতা করবে.আশা করা হয়েছে,সিআইএ দপ্তর ইরাক ও আফগানিস্তানে বিদেশের মাটিতে সবচেয়ে বড় দুটি ঘাঁটি হিসাবেই থাকবে,এই প্রসঙ্গে জানতে ইচ্ছে হয়,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে অন্য দেশের বড় গুপ্তচর সংস্থার ঘাঁটি থাকলে,রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কি স্বাগত জানাবে এই উপস্থিতি?.গত বছরের ডিসেম্বর মাসে ইরাক থেকে নিয়মিত বাহিনী দেশে ফিরেছে, আর ২০১৪ সালে ফিরে যাবে আফগানিস্তান থেকে.