রুশ প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থী ভ্লাদিমির পুতিন পরবর্তী পরিকল্পনা মূলক প্রবন্ধ প্রকাশ করেছেন, নাম গণতন্ত্র ও রাষ্ট্রের গুণগত মান. এই বারে প্রবন্ধ প্রকাশ করা হয়েছে "কমেরসান্ত" সংবাদপত্রে. এটি এর মধ্যেই চতুর্থ বিষয়. প্রথমটি ছিল প্রাক্ নির্বাচনী পরিকল্পনার ভূমিকা অংশ নিয়ে. দ্বিতীয়টি ছিল জাতিগত প্রশ্নাবলী নিয়ে আলোচনা, আর তৃতীয়টি – অর্থনৈতিক সমস্যা নিয়ে.

রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী মনে করেন যে, গণতন্ত্রের অনুপস্থিতিতে আধুনিক ও ফলপ্রসূ রাষ্ট্র তৈরী করা সম্ভব নয়. ভ্লাদিমির পুতিনের মত অনুযায়ী রাশিয়াতে বর্তমানে নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে দেশের নিয়ন্ত্রণে অংশ গ্রহণের বিষয়ে প্রস্তুত থাকার চেয়ে রাষ্ট্রের গুণগত ভাবে মান পেছিয়ে রয়েছে, এর ফলে, গণতন্ত্রের গঠন তন্ত্রের আধুনিকীকরণ প্রয়োজন.

প্রসঙ্গতঃ এই প্রবন্ধে নব্বইয়ের দশকে ফিরে যাওয়ার প্রচেষ্টা নিয়ে সাবধান করে দেওয়া হয়েছে. সেই সময়ে রাশিয়া কোনও আধুনিক রাষ্ট্র অর্জন করে নি, বরং বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে গোপন লড়াই, কোনও ন্যায়বাদী বা স্বাধীন সমাজ নয়, বরং স্বনিযুক্ত "উচ্চশ্রেণীর" স্বেচ্ছাচার.  ভ্লাদিমির পুতিন বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, ২০০০ সালের পর থেকে করা রাজনীতিতে জনগনের ইচ্ছাকেই সাকার করা হয়েছে. গত দশকে, ভ্লাদিমির পুতিন ও দিমিত্রি মেদভেদেভের রাষ্ট্রপতি থাকা অবস্থায় রাশিয়াতে মধ্যবিত্ত শ্রেনী তৈরী হয়েছে. সেই শ্রেনী নিজেদের সংকীর্ণ ব্যক্তিগত সুখ সমৃদ্ধি তৈরীর ক্ষুদ্র পৃথিবী ছেড়ে বর্তমানে বের হয়েছে ও দেশের নাগরিক সমাজের উন্নতিতে সহায়তা করেছে.

ভ্লাদিমির পুতিন প্রস্তাব করেছেন রাজনৈতিক ব্যবস্থার গঠন তন্ত্র এমন ভাবে করতে, যাতে তা বড় সামাজিক গোষ্ঠীর সমস্ত স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়কে ধরতে পেরে, প্রতিফলিত করতে পারে ও সেই গুলির গণ সহমত আদায় করতে পারে. জনগনের "সক্রিয় অধিকার" থাকার প্রয়োজন রয়েছে – অর্থাত্ নিজেদের পক্ষ থেকে আইন গ্রহণ প্রক্রিয়ার পরম্পরা গঠন, নিজেদের প্রকল্পকে প্রস্তাব করার ও প্রাথমিক ভাবে প্রয়োজনীয়র সংজ্ঞা তৈরী করার. এখানে বিশাল ভূমিকা পালন করে ইন্টারনেট. তাই ভ্লাদিমির পুতিন প্রস্তাব করেছেন যে, ইন্টারনেটে যে সমস্ত নাগরিক উদ্যোগ গুলির পক্ষে অন্ততঃ এক লক্ষ লোকের স্বাক্ষর যুক্ত হবে, সেই সমস্ত গুলিকেই দেশের লোকসভাতে আবশ্যিক ভাবে বিচার্য বলে নিয়ম তৈরীর প্রয়োজন রয়েছে.

ভ্লাদিমির পুতিন মনে করেন যে, পৌরসভা থেকে রাষ্ট্রীয় প্রশাসন পর্যন্ত সমস্ত ক্ষমতার শীর্ষেরই সংশোধনের প্রয়োজন রয়েছে. তাঁর মতে, স্থানীয় প্রশাসনের অর্থনৈতিক ভাবে স্বয়ং সম্পূর্ণ ও স্বাধীন হওয়ার দরকার রয়েছে. কেন্দ্র, নিজের পক্ষ থেকে দেশের নিয়ন্ত্রণ যোগ্যতা  না হারিয়ে যেন ক্ষমতার পূণর্বন্টন ও হস্তান্তর করতে পারে. পুতিনের মতে, নতুন রাষ্ট্র ধারণা তৈরীর প্রয়োজন পড়েছে, যা সৃষ্টি ও বাণিজ্যের উপযুক্ত এবং জীবনের জন্য আরও ভাল পরিবেশ তৈরী করতে পারে.

এর জন্য প্রয়োজনীয় হল সরকারি কর্মচারীদের কাজের মূল্যায়ণের নির্ণায়ক বদলের. ভ্লাদিমির পুতিন প্রস্তাব করেছেন সরকারি পরিষেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে বাজে কাজের জন্য ও সাধারন সূচক অনুযায়ী কাজ করতে না পারার জন্য কর্মচারীদের প্রয়োজনে অনুপযুক্ত ঘোষণা করতে হবে. "ক্ষমতা ও সম্পত্তির" মধ্যে যোগ সূত্রকে ছিঁড়ে ফেলতে হবে ও অর্থনৈতিক জীবনে রাষ্ট্রের অনুপ্রবেশের মাত্রা নিশ্চিত করতে হবে. সারা জাতির জন্যই কাজ হওয়া উচিত্ দুর্নীতি দমন. দুর্নীতি প্রবণ পদ গুলিকে নির্দিষ্ট করে দেওয়া দরকার. আর সেই সমস্ত পদে বহাল থাকা সরকারি কর্মচারীরা বেশী যেমন বেতন পাবেন, তেমনই বাধ্য হবেন নিজেদের ব্যক্তিগত আর্থিক কাজকর্মের বিষয়ে সম্পূর্ণ ভাবে স্বচ্ছ থাকার বিষয়ে সম্মতি দিতে, আর এই ক্ষেত্রে তাদের পরিবারের তরফের ব্যয় ও বড় মাপের ক্রয়ের বিষয়কেও অন্তর্ভুক্ত করতে হবে.

ভ্লাদিমির পুতিন আরও প্রস্তাব করেছেন দেশের বিচার ব্যবস্থাকে উন্নত করার পথের লক্ষ্য বদল করার. এখানে সমস্ত লক্ষ্য থাকা উচিত্ অভিযোগ ও শাস্তির বিষয়ে পক্ষপাতিত্ব থেকে সরে যাওয়া. সমস্ত আদালতের রায়ই ইন্টারনেটে সহজ লভ্য হওয়া উচিত্.

0এই প্রবন্ধের শেষে ভ্লাদিমির পুতিন বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, তিনি নির্দিষ্ট সমাধানই প্রস্তাব করেছেন, যেগুলির বাস্তবায়ন করা হলে জনগনের ক্ষমতা, অর্থাত্ গণতন্ত্র সত্যিকারের হতে পারবে. আর রাশিয়া দেশকে তা স্থিতিশীল ও সফল উন্নতি করতে সক্ষম করবে.