চালকবিহীন ড্রোন, য়ার মালিক কে, সেটা জানা যায়নি, ইয়েমেনে ১১ জন জঙ্গীকে খতম করেছে, যার মধ্যে আল-কায়িদার সদস্যরাও ছিল. প্রত্যক্ষদর্শীদের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার এই খবর পরিবেশন করেছে. গতরাতে এই ঘটনা ঘটেছে. স্থানীয় উপজাতির এক নেতার ভাষ্য অনুযায়ী, ১১ জন নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে ৪ জন আল-কায়িদার সদস্য.

     ইয়েমেনে আল-কায়িদার শাখা, যার আরেকটা নাম আরবীয় উপদ্বীপ শাখা, বিশ্বে অন্যতম সবচেয়ে সক্রিয় গোষ্ঠী. ২০১০ সালের নভেম্বর মাসে ঐ গোষ্ঠীর কর্মকর্তারা সংযুক্ত আরব আমীরশাহীতে পণ্যবাহী বিমান ধ্বংস করার এবং লন্ডনের শহরতলীতে ডাকবাক্সে ও দুবাইয়ে গুদামে বিস্ফোরক পদার্থ রাখার দায়ভার গ্রহণ করেছিল. গত সেপ্টেম্বর মাসে মার্কিনী সংবাদ মাধ্যমগুলি জানিয়েছিল, যে সি.আই.এ. নাকি গোপনে ইয়েমেনে বিমানবন্দর নির্মাণ করছে, যেখান থেকে ইয়েমেনে ঐস্লামিক জঙ্গীদের খতম করার জন্যে চালকবিহীন বিমান ব্যবহার করা হবে.