সোচী শহরে অলিম্পিকের নির্মাণ কার্য চলছে আধুনিক পরিবেশ সংরক্ষণ সংক্রান্ত মান বজায় রেখে, যাতে পারিপার্শ্বিক বিষয়ে এর প্রভাব কম করা যায়.

    "সবুজ" নির্মাণ প্রক্রিয়ায় খুবই কম করা হয়েছে জঞ্জালের পরিমান. নতুন জঞ্জাল পুনর্ব্যবহারের যোগ্য করণ কারখানায় বছরে ২ লক্ষ টন জঞ্জাল ব্যবহার করা সম্ভব. একটি কোম্পানী থেকে প্রস্তাব করা হয়েছে ছাদের উপরে জমা বৃষ্টির জল একসাথে করে পরিস্কার করার প্রযুক্তি. আদলের শহরের স্টেশনে রাস্তার আলো লাগানো হয়েছে সৌর ব্যাটারী থেকে শক্তি সংগ্রহে সম্ভব ও হাওয়া কলও সেখানে রয়েছে. আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির শর্ত- পরিবেশ দূষণ সবচেয়ে কম করতে হবে – তা পালিত হচ্ছে, এই কথা রেডিও রাশিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ঘোষণা করে রাশিয়ার ক্রীড়া, পর্যটন ও যুব রাজনীতি মন্ত্রী ভিতালি মুতকো বলেছেন:

    "অলিম্পিকের জন্য নির্মীয়মান জায়গা গুলি সম্বন্ধে কি ধরনের দাবী থাকবে, তা আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি নির্দিষ্ট করে দিয়েছে ও সোচী – ২০১৪ কমিটি তা গ্রহণ করেছে. সোচীর সমস্ত প্রকল্প পরিবেশ সংক্রান্ত পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে, অনেক গুলি নিয়ে বিভিন্ন পরিবেশ সংরক্ষণ সংস্থার সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে. এখন সমস্ত প্রশ্নই সমাধান করা হয়ে গিয়েছে. প্রকৃতি সবচেয়ে কম ভাবে এর ছোঁয়া পাবে. যদিও, এই সমস্ত জায়গা গুলির বিশাল আকৃতির কথা মনে করলে এই কাজ খুবই কষ্টসাধ্য. রাশিয়ার প্রশাসন নতুন পরিবেশ নিরাপত্তা সংক্রান্ত স্ট্র্যাটেজি নিয়েছে. প্রতি বছরের সঙ্গেই প্রকৃতি যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে, দূষণ কমানো হচ্ছে".

    উত্তর ককেশাস, যেখানে সোচী শহর রয়েছে, - এটা বহু বিরল প্রজাতির প্রাণী ও উদ্ভিদের থাকার জায়গা. বিশ্ব বন্য প্রাণী সংস্থা ও রাশিয়ার প্রকৃতি মন্ত্রণালয়ের সাথে সোচীর জাতীয় অরণ্য উদ্যানে মধ্য এশিয়ার চিতা বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হচ্ছে. সোচীর বন বিভাগের কর্মীরা য়ে সমস্ত উদ্ভিদের নাম ইতিমধ্যেই বিরল প্রজাতির নিশ্চিহ্ণ তালিকায় ঢুকেছে, সেই গুলির চারা লাগাচ্ছেন. যে সব কোম্পানীরা সোচী শহরে অলিম্পিকের নির্মাণ করছে, তারই এই কাজের জন্য সাহায্য করছে. কিন্তু রাশিয়ার পরিবেশ সংরক্ষণ সংক্রান্ত সমস্যা বিষয়ে বিশেষজ্ঞ রোমান মিনাতসেকানভ জোর দিয়ে বলেছেন যে, "সমস্ত রকমের সংরক্ষণের চেষ্টা স্বত্ত্বেও ক্ষতি কম করা কঠিন. তিনি বলেছেন সম্পূর্ণভাবে প্রকৃতির ক্ষয় রোধ করা সম্ভব হবে না, যে সমস্ত কাজ করা হয়েছে তৈরীর জায়গা থেকে প্রাণী ও উদ্ভিদকে অন্য জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার তা ঠিক আর তার ভিত্তিও আছে. কিন্তু এই কথা বলা যে, কত বছর বাদে আবার প্রকৃতি সম্পূর্ণ ভাবে সেরে উঠবে, তা একজন বিশেষজ্ঞও বলতে চাইবেন না. সবই নির্ভর করবে এই এলাকার প্রকৃতির অংশ নতুন করে তৈরী করার জন্য কত সক্রিয়ভাবে কাজ করা হবে, তার উপরে".

0    তা স্বত্ত্বেও উত্তর ককেশাস প্রাণী ও উদ্ভিদের জন্য খুবই ভাল জায়গা, এই কথা উল্লেখ করেছেন অলিম্পিক নির্মাতারা. ২০২০ সালে এখানে বিশ্বমানের পাহাড়ী পর্যটন কেন্দ্র তৈরী করা হবে, যা পরিবেশ বান্ধব. এই অঞ্চলের আন্তর্জাতিক পর্যটনের উন্নতির জন্য অলিম্পিক প্রতিযোগিতা করা প্রথম পদক্ষেপ.