রাশিয়ার প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী আলেক্সেই কুদরিন ঘোষণা করেছেন যে, তিনি রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচন থেকে বেরিয়ে যাওয়া প্রার্থী গ্রিগোরী ইভলিনস্কির সঙ্গে সহযোগিতা করতে তৈরী আছেন. নিজের টুইটারের ব্লগে কুদরিন উল্লেখ করেছেন যে, এখানে সম্মিলিত ভাবে "গণতান্ত্রিক শক্তি গুলির জোট তৈরী" করার কথা হতে পারে.

    আলেক্সেই কুদরিন আগে টুইটারে মনে করিয়ে দিয়েছিলেন যে, গণতান্ত্রিক শক্তি গুলিকে একজোট করা নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরেই কথা হচ্ছে. এখন সেখানে ইয়াবলকা দলের হয়ে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী হতে যাওয়া প্রাক্তন পদ প্রার্থী ইভলিনস্কি যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ পেয়েছেন.

    এর আগে কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদ ইভলিনস্কিকে নথিভুক্ত করা থেকে বিরত করেছে. কারণ- তাঁর সমর্থনে সংগৃহিত বিশ লক্ষের ও বেশী স্বাক্ষরের মধ্যে শতকরা ২৩ ভাগ বাতিল করতে হয়েছে সততার অভাবে. দল এর মধ্যেই ঘোষণা করেছে যে, তারা কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদের সিদ্ধান্ত নিয়ে মামলা করবে. কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেছেন যে, এক্ষেত্রে সাফল্যের সম্ভাবনা প্রায় নেই.

    একই সময়ে রুশ প্রজাতন্ত্রের কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদ প্রার্থী হিসাবে শত কোটি পতি মিখাইল প্রোখোরভকে নথিভুক্ত করেছে. সামাজিক মত মূল্যায়ণ কেন্দ্রের কাছ থেকে পাওয়া শেষ তথ্য অনুযায়ী তিনি অন্য বিরোধী দল ন্যায় বাদী রাশিয়ার প্রার্থী সের্গেই মিরোনভের মতই জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পেরেছেন. ইভলিনস্কি রাষ্ট্রপতি নির্বাচন থেকে পরিত্যক্ত হওয়াতে প্রোখোরভের অবস্থান কিছুটা ভাল হতেও পারে বলে মনে করে রাজনীতিবিদ ভিয়াচেস্লাভ নিকোনভ বলেছেন:

    "ক্রেমলিনের জন্য ইভলিনস্কিকে হঠিয়ে দেওয়া একেবারেই লাভজনক নয়, এখন তাঁর নির্বাচনে অংশ না নেওয়া থেকেই বরং বেশী ক্ষতি হতে পারে. একমাত্র রাজনৈতিক ভাবে এই পরিস্থিতিতে লাভবান হয়েছেন সম্ভবতঃ প্রোখোরভ – যিনি এই নির্বাচনের দৌড় থেকে প্রায় বাইরেই ছিলেন. তাঁর রেটিং – সমস্ত নির্বাচকদের মধ্যে খুব বেশী হলে শতকরা তিন শতাংশ".

    মঙ্গলবারে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে. রাশিয়ার কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদ তথাকথিত সবুজ পুস্তিকা প্রকাশ করেছে- যেখানে গত বছরের ডিসেম্বর মাসে বিগত লোকসভা নির্বাচনের সময়ে নথিভুক্ত আইন লঙ্ঘণের ঘটনার উল্লেখ করা হয়েছে. সেখানে নির্দেশ করা হয়েছে যে, ১৭০০টি নথিভুক্ত পর্যবেক্ষকদের অভিযোগের মধ্যে ২০০টিরও কম প্রমাণিত হয়েছে. আদালতে বিচারের জন্য নির্বাচনী আইন ভঙ্গের অভিযোগে পাঠানো হয়েছে ১০৫টি মামলা.