রাশিয়ার নাগরিক দের জন্য ভারতে ভিসা পাওয়া সহজ ও দ্রুত হবে. টাইমস অফ ইন্ডিয়া খবরের কাগজে প্রকাশ করা হয়েছে যে, ভারত আসন্ন সময়ে সেই সমস্ত দেশের তালিকা বৃদ্ধি করছে, যাদের দেশের নাগরিকেরা ভারতের বিমানবন্দরে এলেই ভিসা পাবেন. এই তালিকায় রাশিয়া থাকছে. কিছু বিশদ বিবরণ সমেত লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ.

    রাশিয়ার লোকেরা এই সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছেন. ভারতের যে সেই সমস্ত দেশের সংখ্যা বৃদ্ধির ইচ্ছা আছে, যাদের নাগরিকেরা এখানে বিমানবন্দরেই আগমনের সময়ে ভিসা পেতে পারেন, তা রুশ কূটনীতিবিদেরা গত বছর থেকেই জানতেন. আশা করা হয়েছিল যে, এটা এই বছরের আগেই শুরু হয়ে যাবে. কিন্তু সিদ্ধান্ত গ্রহণে কিছুটা দেরী হয়ে গেল.

    রাশিয়া ও ভারত খুবই পরম্পরা মেনে সম্পর্কের প্রসার ঘটাতে চেয়েছে ও ভিসা ব্যবস্থাকে সহজ করতে চেয়েছে. আর এটা শুধু সেই জন্যেই নয় যে, তা শুধু আমাদের বহুমুখী দিকে ব্যবসা সংক্রান্ত সম্পর্কেরই উন্নতি করবে. বরং সেই জন্য যে, আমাদের দুই দেশের মানুষের মধ্যে একে অপরের প্রতি খুবই শক্তিশালী টান রয়েছে, একে অপরের সংস্কৃতি জানার আগ্রহ রয়েছে, ইতিহাস, ভাষা জানার ঔত্সুক্য রয়েছে. এই প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল ২০১০ সালে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের ভারত সফরের সময়ে. তখন দিল্লীতে এক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল, যেখানে সেই সমস্ত ধরনের লোকের তালিকা নিয়ে সমঝোতা হয়েছিল, যাদের জন্য ভিসা তৈরীর নিয়ম হয়েছিল সহজ. সেখানে বিশেষ সুযোগ দেওয়া হয়েছিল সরকারি প্রতিনিধি দলের লোকেদের জন্য, ব্যবসাদার ও শিল্পপতিদের জন্য, যে সমস্ত লোকেরা বৈজ্ঞানিক, সাংস্কৃতিক অথবা সৃষ্টিধর্মী কাজকর্ম করে থাকেন, তাদের জন্য, এর মধ্যে ছিলেন আরও ছাত্ররা, ডক্টরেট যারা করছেন ও তাদের সঙ্গে আসা প্রফেসররাও. দিমিত্রি মেদভেদেভ তখন উল্লেখ করেছিলেন যে, এই চুক্তি যা স্বাক্ষরিত হয়েছে পারস্পরিক বাসা সংক্রান্ত বিষয় সহজ করার জন্য, তা আরও সংশোধিত হবে ও সহজ হবে. রুশ রাষ্ট্রপ্রধান রুশ- ভারত সম্পর্ককে নাম দিয়েছিলেন বিশেষ সুযোগ প্রাপ্ত স্ট্র্যাটেজিক সহযোগিতা. এই বিষয়ে ভারতীয় সাংবাদিক শ্রী বিনয় শুক্লা বলেছেন:

    "ব্যাপারটা হল যে, রাশিয়া ও ভারতের সামগ্রিক ইতিহাসে কখনও এই দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ বিগ্রহ হয় নি ও কখনও তাদের মধ্যে বিরোধ ছিল না. এটা খুবই ভাল ঐতিহাসিক ভাবে আবহ তৈরী করেছে, যার ফলে দুই দেশের মধ্যে গভীর সংযোগ সাধিত হতে পারে, সেই ধরনের জমি তৈরী হতে পারে, যাতে মৈত্রী ও বিশিষ্ট সুযোগ সম্পন্ন স্ট্র্যাটেজিক সহযোগিতা বিকশিত হয়".

    রাশিয়াকে সেই সমস্ত দেশের তালিকায় যোগ করা, যাদের নাগরিকেরা ভারতের মাটিতে নামলেই ভিসা পেতে পারেন, তা অনেকটাই প্রসারিত করবে রুশ ও ভারতীয় লোকেদের মধ্যে কথোপকথন এবং তা হবে তাদের পেশার সঙ্গে বা সফরের উদ্দেশ্যের সঙ্গেই কোন সম্পর্ক না রেখে. প্রসঙ্গতঃ এই ভিসা শুধু দিল্লী বিমানবন্দরে নামলেই যে পাওয়া যাবে তা নয়, বরং আরও অনেক ভারতীয় বিমান বন্দরেই তা পাওয়া যাবে. আসা করা হয়েছে এই বারের ট্যুরিস্ট সিজনে ভারতে যাবেন ৮০ হাজারেরও বেশী রুশ লোক.