আল- কায়দার” স্থানীয় শাখা “আল-শাবাব” দলে এই উগাণ্ডার লোকেরা যোগ দিতে চেয়েছিল. কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে সন্দেহভাজন এই লোকেদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে, এখন তদন্ত চলছে.

0       “আল- শাবাব” দল সোমালির দক্ষিণ এলাকা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রেখেছে. আফ্রিকা সঙ্ঘের শান্তিরক্ষা বাহিনী ও কেনিয়ার অভিযান ব্যাটেলিয়নের বিগত কিছু সময়ে হানা ভারী আঘাতের পরে সন্ত্রাসবাদীরা যেমন সোমালির ভিতরেই নানা প্রজাতির মধ্যে, তেমনই আফ্রিকার মুসলমানদের মধ্যে, আর তারই সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট ব্রিটেন, নিকট প্রাচ্যের দেশ গুলিতে নিজেদের দলে লোক টানার কাজে বেশী করে সক্রিয় হয়েছে. ঐস্লামিকেরা সোমালিকে ইরাক ও আফগানিস্তানের মতই একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা বলে মনে করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তার পশ্চিমের জোটের বিরুদ্ধে “জেহাদ” করার জন্য.