0রাশিয়ার জাতীয় মহাকাশ সংস্থা রসকসমস পরিকল্পনা করেছে ২০১৩ সালে সম্পূর্ণ ভাবে পুনঃ সঞ্চারণের ব্যবস্থা তৈরী করতে চায়, যা রাশিয়ার মহাকাশে পাঠানো কৃত্রিম উপগ্রহ গুলির কাজ বাস্তব সময়ে নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে. এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন রসকসমস সংস্থার প্রধান ভ্লাদিমির পাপোভকিন.


0    মহাকাশ সংক্রান্ত দপ্তরের প্রধান ফোবোস- গ্রুন্ত মিশনের অসফল হওয়া প্রসঙ্গে এই প্রশ্ন উত্থাপন করেছেন. তিনি বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, কেন ফোবোস গ্রুন্ত উপগ্রহের ইঞ্জিন ব্যবস্থা চালু হয় নি তা এখনও স্পষ্ট নয়. এখানে সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না যে, কৃত্রিম উপগ্রহের উপরে অন্য কোন ভাবে প্রভাব বিস্তার করার কথা. রসকসমস সংস্থার প্রধান বলেছেন – "রাশিয়ার জন্য বিশ্বের অপ্রত্যক্ষ অঞ্চল গুলিতে আমাদের উপগ্রহ গুলির প্রায় সময়েই কাজে বিঘ্ন ঘটার কারণ বোধগম্য নয় – সেখানে, যেখানে আমরা উপগ্রহ গুলিকে দেখতে পাই না ও তাদের কাছ থেকে দূরত্বের পরিমাপ সংক্রান্ত তথ্য পাই না". এই ঘোষণা ব্যতিরেকেও মহাকাশের উপগ্রহ গুলিকে নিয়ন্ত্রণহীণ করার উদ্দেশ্য নিয়ে তাত্ত্বিক ভাবে প্রভাব ফেলার উপায় রয়েছে, এই কথা উল্লেখ করে "জাতীয় প্রতিরক্ষা" নামের জার্নালের প্রধান সম্পাদক ইগর করোতচেঙ্কো বলেছেন:


0    "এখানে কয়েকটি সম্ভাবনা রয়েছে. এটা প্রথমতঃ, পরিমান মতো বিকীরণের মাধ্যমে করা সম্ভব, এখন প্রশ্ন হল কি দিয়ে এই বিকীরণ করা হয়ে থাকে. দ্বিতীয় – তড়িত্চুম্বকীয় আঘাত হেনে, যা সমস্ত ব্যবস্থাকেই বিকল করে দিতে সক্ষম".


0    তাই খুবই প্রয়োজন পড়েছে পুনঃ সঞ্চারণের জন্য ব্যবস্থার, যাতে বাস্তব সময়ে উপগ্রহ গুলিকে দেখতে পাওয়া সম্ভব হয়. এই সমস্যার সমাধান করা, অর্থাত্ জানতে পারা কখন কি হচ্ছে, তার জন্য দরকার তিনটি "লুচ- ৫" ধরনের কৃত্রিম উপগ্রহ, যার একটি গত বছরের ডিসেম্বর মাসে পাঠানো হয়েছে বলে উল্লেখ করে ইগর করোতচেঙ্কো বলেছেন


0    "এটা করা দরকার, যেহেতু এই ধরনের বিকল হয়ে যাওয়ার কারণ বোঝা যাচ্ছে না. হয় এটা বাইরে থেকে প্রভাব ফেলে করা হয়েছে, অথবা অন্য কোন প্রক্রিয়ার ফলে হয়েছে. তাই প্রয়োজন হল, যাতে দূরত্ব নিয়ন্ত্রণের তথ্য পাওয়া ও তা নিয়ন্ত্রণের উপায় থাকে পৃথিবীর চারপাশে কক্ষপথের প্রত্যেক জায়গাতেই".


0    বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে, তারই সঙ্গে প্রয়োজনীয় হল রাশিয়ার জন্য অপ্রত্যক্ষ পৃথিবীর দিকে এখান থেকে পাঠানো রেডিও প্রযুক্তি সহ কৃত্রিম উপগ্রহ থাকা, যেগুলি রাশিয়ার জাতীয় নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার মাধ্যমে যে সময়ে উপগ্রহ গুলিকে দেখতে পাওয়া যাবে না, সেই সময়ে নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে পারে.


0    সন্দেহ নেই য়ে, নতুন পুনঃ সঞ্চারণের ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করবে ও কোন রকমের বিপর্যয়ের সম্ভাবনা থাকলে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তও নিতে পারবে.


0    গত বছরে রাশিয়াতে চারবার উপগ্রহ প্রেরণের সময়ে দূর্ঘটনা ঘটেছিল, যার ফল পরীক্ষা করতে গিয়ে বহুবার যন্ত্রাংশের গুণমান যথেষ্ট ভাবে পরীক্ষা না করেই ব্যবহারের অভিযোগ করা হয়েছিল. তাই রসকসমস সংস্থা অনেক কিছুই করেছে যাতে, রকেট প্রযুক্তি সংক্রান্ত বিষয়ে ভরসা যোগ্যতার পতন রোধ করা সম্ভব হয়. সেই সমস্ত কাজকর্মের তালিকা বৃদ্ধি করা হয়েছে অনেক গুণ, যা তিনবার করে নিয়ন্ত্রণ করে দেখা হয়ে থাকে, তার মধ্যে যেমন বাস্তবিক উপায়ও যোগ করা হয়েছে, যা ফোটো তোলা ও ভিডিও রেকর্ডিং এর মাধ্যমে করা হয়ে থাকে. বিশেষ ধরনের দ্রুত প্রতিক্রিয়াশীল দল তৈরী করা হয়েছে, যারা প্রতিটি রকেট পাঠানোর আগে আক্ষরিক ভাবেই প্রযুক্তি গত পরম্পরায় কোন ত্রুটি আছে কি না, তা পরীক্ষা করে দেখে থাকে. উড়ান সংক্রান্ত কাজকর্মের তালিকা এখন থেকে দ্বিতীয় বার করে করা হচ্ছে. এই সব ও অন্যান্য ব্যবস্থায় ফল পাওয়া উচিত্.