২০১২ সালে উত্তর কোরিয়া, সম্ভবত, রকেট ক্ষেপণ সক্রিয় করবে এবং হয়ত তৃতীয় পারমাণবিক বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে. এ সম্বন্ধে বলা হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও জাতীয় নিরাপত্তা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞদের রিপোর্টে. উত্তর কোরিয়া এভাবে অঞ্চলে উত্তেজনা বাড়াবে. কিম চেন ঈনের তা প্রয়োজন, যাতে নিজের প্রাধান্যমূলক ভূমিকা প্রদর্শন করা যায় এবং দেশের উপর নিয়ন্ত্রণ বাড়ানো যায়, বলা হয়েছে ইনস্টিটিউটের রিপোর্টে. অর্থনৈতিক কাঠিন্য এবং রাজনৈতিক উপাদান দেশের পরিস্থিতিতে অনিশ্চয়তা বাড়াতে পারে. তরুণ কিম চেন ঈন উত্তর কোরিয়ায় আভ্যন্তরীন ঐক্য সুদৃঢ় করার জন্য নতুন নতুন প্ররোচনা চালাতে আগ্রহী হতে পারেন, দক্ষিণ কোরিয়ার বিশেষজ্ঞদের মতামত প্রকাশ করে জানিয়েছে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ সংস্থা. একই সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার বিশেষজ্ঞরা অনুমান করেন যে, ২০১২ সালের প্রথমার্ধে কোরীয় উপদ্বীপের পারমাণবিক সমস্যা সংক্রান্ত ছয়পাক্ষিক আলাপ-আলোচনা পুনরারম্ভ হতে পারে. তবে, সেওলে মনে করা হচ্ছে যে, এ আলাপ-আলোচনায় “পিয়ং ইয়ংকে সংযত রাখার ব্যাপারে অনুভবযোগ্য অগ্রগতি অর্জন কঠিন হবে”.