0পাকিস্তানের রাজনৈতিক জীবনে বড় পরিবর্তন হতে পারে আগামী সপ্তাহ কয়েকের মধ্যে. প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ও বর্তমানে দেশ থেকে পালিয়ে থাকা পারভেজ মুশারফ ঘোষণা করেছেন যে, তিনি শীঘ্রই দেশে ফিরে আসছেন. দেশের কর্তৃপক্ষ অবশ্য হুমকি দিয়েছে যে, দেশে ফেরা মাত্র তাঁকে জেলে পাঠানো হবে, কারণ তাঁর নামে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা রয়েছে.


0    এক সময়ে পারভেজ মুশারফ দেশের বর্তমান রাষ্ট্রপতি আসিফ আলি জারদারী ও প্রধান বিরোধী নেতা নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে দেশের প্রশাসনকে দিয়ে মামলা করিয়েছিলেন, যদিও তাঁর রাষ্ট্রপতি থাকা কালীণ সময়ের শেষে যখন দেশের সামরিক বাহিনী থেকে তাঁর প্রভাব কমে গিয়েছিল, তখন এই দুই নেতাই দেশে রাজনীতি করার সুযোগ পেয়েছিলেন, তাই এবারেও যখন প্রশাসন ও বিরোধী অসামরিক প্রতিপক্ষের জোর কমে গিয়েছে, তখন মুশারফকে সামনে রেখে সামরিক বাহিনী আইনত দেশের ক্ষমতার সমীকরণ পাল্টে দিতে পারে. সামরিক শক্তি পাকিস্তানের প্রধান চালিকা শক্তি, আর তারাই দেশের ভবিষ্যত নির্ধারণ করে থেকে. তাই যদি এবারে ২০১৩ সালে নির্বাচনের আগেই প্রশাসনের গদি উল্টে যায়, তাহলে মুশারফকে সামনে রেখে সামরিক বাহিনী বকলমে ক্ষমতা দখল করতে পারে.


0    পাকিস্তানের সংবাদ মাধ্যম বর্তমানে এই সমীকরণই দেখতে পাচ্ছে ও ঋণ, প্রজাতি সংঘর্ষ, অর্থনৈতিক অবক্ষয়ে পাকিস্তানের জনগন আবার করে কোন একটা সমাধান সূত্র আশা করছে সামরিক শক্তির মাধ্যমেই. ঐস্লামিক রাষ্ট্রগুলির পক্ষে গণতান্ত্রিক হওয়া খুবই কঠিন, সেখানে একনায়কতন্ত্র ও স্বৈরতন্ত্রই বেশী জোরালো জাতীয় আবেদন সৃষ্টি করতে পারে.