টোকিয়োয় প্রয়াত কিম চেন ইরের পরে তার কনিষ্ঠ পুত্র কিম চেন ঈর শাসনক্ষমতায় আসীন হওয়ার পরে উত্তর কোরিয়ার পরিস্থিতির দিকে তীর্য মনোযোগ রাখবে. জাপান সেইসঙ্গেই দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া সহ সারা বিশ্বের সাথে কোরিয় উপদ্বীপের সমস্যার সমাধানের জন্য সহযোগিতা করতে প্রস্তুত. নববর্ষের সাংবাদিক সম্মেলণে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োসিহিকো নোডা এই মন্তব্য করেছেন. প্রথাগত নববর্ষীয় সাংবাদিক সম্মেলণে নোডা আরও বলেছেন, যে টোকিও ২০১২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে স্ট্র্যাটেজিক সম্পর্ক মজবুত করতে চায়. জাপান চায় ফুটএম্মায় মার্কিনী নৌবাহিনীর ঘাঁটি সরিয়ে দেশের দক্ষিণপ্রান্তে ওকিনাওয়া দ্বীপে নিয়ে যেতে. জাপান দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ত্সুনামি ও ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার পুণর্জীবনের জন্য সক্রিয়ভাবে কাজ করছে. ইয়োসিহিকো নোডা আরও একবার পুণরূদ্ধার কাজের ব্যয়ের খাতে খরচা করার জন্য কর বাড়ানোর সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন.