উত্তর কোরিয়ার জনগন বুধবারে কিম চেন ইরের শেষ বিদায় শুরু করেছেন, যিনি ১৯৯৪ সাল থেকে দেশের নেতৃত্বে ছিলেন. দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে যে, শেষকৃত্য শুরু হয়েছে স্থানীয় সময় সকাল দশটায়. উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় রেডিও টেলিভিশন সংস্থা এই অনুষ্ঠান প্রচার করা শুরু করেছে বলে জানিয়েছে ফ্রান্স প্রেস সংবাদ সংস্থা. দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী কিম চেন ইরের মৃতদেহ তাঁর মৃত পিতার দেহের সঙ্গে একই কাঁচের কবরে শায়িত থাকবে কীমসুসান প্রাসাদে. দেহের সঙ্গে এই অন্তিম শয়ানে প্রদর্শিত হবে কিম চেন ইরের নিজের গাড়ী, বিশেষ ট্রেনের ওয়াগন, পোষাক ও কাজের টেবিল. শেষকৃত্যের আগে এই কাঁচের কবর পিয়ং ইয়ং শহরের রাস্তা দিয়ে যাবে, যাতে শহরের নাগরিকেরা তাঁদের দেশে যে প্রচলিত নামে কিম চেন ইরকে ডাকা হত সেই নাম অর্থাত্ "প্রিয় নেতা" কিমকে বিদায় জানাতে পারেন. মৃত কিম চেন ইরের স্মৃতিতে উত্তর কোরিয়ার শহর গুলিতে কামান দাগা হবে, ট্রেন ও জাহাজের ভোঁ বাজানো হবে, দেশের সমস্ত নাগরিক তিন মিনিটের নীরবতা পালনের সময়ে নত মস্তক হয়ে থাকবেন. কিম চেন ইরের দেহ সংরক্ষণের জন্য বিশেষ মলম লাগানোর প্রক্রিয়া করার জন্য মস্কো থেকে বায়ো মেডিক্যাল টেকনোলজি সেন্টারের বিশেষজ্ঞদের নিমন্ত্রণ জানানো হয়েছে, যাঁরা ভ্লাদিমির লেনিনের দেহ সংরক্ষণের কাজ করেন. ১৭ই ডিসেম্বর দেশে ট্রেনে চড়ে যাওয়ার সময়ে সরকারি খবরে প্রকাশ যে, কিম চেন ইরের মৃত্যু হয়েছে. মৃত্যুর কারণ ছিল হৃদরোগ.