উত্তর কোরিয়ায় শাসন ক্ষমতার হস্তান্তর শান্তভাবে হচ্ছে, মনে করা হচ্ছে ওয়াশিংটনে. পেন্টাগনের প্রতিনিধি জর্জ লিটল বলেন যে, মার্কিনী অধিনায়কমন্ডলী কিম চেন ইর-এর মৃত্যুর পর উত্তর কোরিয়ার সৈন্যবাহিনীর গতিবিধিতে অসাধারণ কিছু লক্ষ্য করেন নি. তিনি উল্লেখ করেন যে, তা উত্তর কোরিয়ায় শাসন ক্ষমতা মসৃণ ও শান্তভাবে হস্তান্তরের একটি সূচক. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি এ আশা প্রকাশ করেন যে, পরিস্থিতি ভবিষ্যতেও এই রকমই থাকবে. এদিকে, মার্কিনী পররাষ্ট্র বিভাগের প্রতিনিধি ভিক্টোরিয়া নুল্যান্ড এক ব্রিফিংয়ে বলেন যে, ওয়াশিংটন উত্তর কোরিয়ায় শোক শেষ হওয়ার পরে ঐ দেশের নতুন কর্তৃপক্ষের সাথে সফল সহযোগিতার আশা পোষণ করছে. নুল্যান্ড বলেন, “স্বভাবতই, আমরা মার্কিনী খাদ্যদ্রব্যের সাহায্য সরবরাহ করার বিষয়েও কাজ করতে চাই”.