শুক্রবার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেছেন,জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ভারতের স্থায়ী সদস্যপদের প্রার্থীতায় রাশিয়ার সমর্থন রয়েছে।গতকাল শুক্রবার মস্কোতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে রুশ প্রেসিডেন্ট রাশিয়া-ভারত সম্পর্ককে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করেছেন। রেডিও ভয়েস অব রাশিয়ার পর্যবেক্ষক গিওর্গি ভানছেব এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

আধুনিক সময়ে আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক রাজনীতির বিশেষ সমস্যাবলীতে  রাশিয়া ও ভারতের রয়েছে একই দৃষ্টিভঙ্গি।এদের মধ্যে রয়েছে-বিশ্ব অর্থনীতির কৌশলগত পরিবর্তন,এশিয়া  অঞ্চলে নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং জঙ্গি ও মাদক চোরাচালানের বিরুদ্ধে সংগ্রাম।মেদভেদেভ বলছেন,'নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যপদ বৃদ্ধির প্রয়োজন হলে আমরা  জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের জন্য ভারতকে একটি শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে মনে করি।ভারত আমাদের জন্য পছন্দের একটি সহযোগি রাষ্ট্র।নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ীপদের জন্য  ভারত যে রাশিয়ার সমর্থন  পাবে তাতে কোন সন্দেহ নেই'।

রাশিয়া ও ভারতের মধ্যকার অনুষ্ঠিত দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে আঞ্চলিক পরিস্থিতি বিশেষকরে আফগানিস্তান ও ইরান সম্পর্কে আলোচনা হয়।রাশিয়া ও ভারত মনে করছে,মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার একাধিক দেশে মৌলিক রাজনীতির পরিবর্তন ঘটনার জন্য কোন সুনির্দিষ্ট কৌশল অবলম্বন করা উচিত নয়।একই সাথে তা আরব-ইজরাইল সম্পর্কের ক্ষেত্রেও।

 রাশিয়া ও ভারত যৌথ বিবৃতি জানায়, তাঁরা ফিলিস্তিন ও ইসরাইলের মধ্যকার আলোচনা পুনরায় শুরু করার ক্ষেত্রে কাজ করবে এবং একই সাথে ভৌগলিকগত দিক দিয়ে একটি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের জন্য রাশিয়া ও ভারত মধ্যপ্রাচ্যে ‘চৌপদী’মধ্যস্থতাকারী দেশের ভূমিকা পালন করবে।

প্রতিবেশী দেশগুলোর পরিস্থিতির ওপর রাশিয়া ও ভারত বেশী গুরুত্ব দিয়েছে।ইরানের পারমানবিক প্রকল্প নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।রাশিয়া ও ভারত উভয়ই ইরানের একপক্ষীয় মনোভাবের বিরোধীতা করেছে।রাশিয়ার পক্ষথেকে একই সাথে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্ক উন্নয়ন ঘটেছে বলে জানায়।

মস্কো সাংহাই সহযোগিতা সংস্থায় যোগদান ও এই প্রক্রিয়ার উন্নয়নে অংশ নেওয়ার জন্য ভারতকে স্বাগত জানিয়েছে।আগামী দিনে রাশিয়া-ভারত দ্বিপাক্ষিক কৌশলগত সম্পর্ক উন্নয়ন শীর্ষক আলোচনায় বলা হয়,বিশ্ব পরিবর্তনের ডাকে সাড়া দিয়েই ভারত সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার পূর্ণ সদস্য পদ পেতে যাচ্ছে।এ সংক্রান্ত ঘোষণায় বলা হয়,সাংহাই সহযোগিতা সংস্থায় ভারতের যোগদান যা সংস্থাটির রাজনৈতিক কাঠামো এবং একই সাথে এর মর্যাদা আরও বৃদ্ধি করবে।

রাশিয়া ও ভারতের রাষ্ট্র প্রধানদের মধ্যে নিয়মিত দ্বিপাক্ষিক বৈঠক যা ইতিমধ্যে ভাল একটি সংস্কৃতিতে রূপ নিয়েছে। এক বছর পূর্বে রুশ প্রেসিডেন্ট ভারত সফর করেন এবং তখন তিনি ভারতের রাজধানী দিল্লী,আগ্রা ও বোম্বাই শহর পরিদর্শন করেন।চলতি বছরে মেদভেদেভ ও মনমোহন সিংয়ের মধ্যে এটি ৩য় সাক্ষাত্কার।এরপূর্বে তাঁরা ব্রিকস ও জি-২০ সম্মেলনে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হয়েছিলেন।