প্রধানমন্ত্রী ও আগামী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থী ভ্লাদিমির পুতিন আজ সরাসরি রুশ নাগরিকদের প্রশ্নের জবাব দিচ্ছেন. তাঁর সঙ্গে সওয়াল জবাব শুরু হয়েছে টেলিভিশন চ্যানেল ও রেডিও মাধ্যমে আজ মধ্য দিনে. এটি ভ্লাদিমির পুতিনের "সরাসরি প্রশ্নোত্তরের" দশম জয়ন্তী বার. আগের বার গুলির মতোই, এই প্রশ্নোত্তর পর্বে দেশের বিভিন্ন কোন থেকে প্রশাসনের প্রধানের সঙ্গে যোগ সাধন করা সম্ভব হয়েছে. নিজেদের প্রশ্ন লোকেরা আগেই ইন্টারনেট, এস এম এস মাধ্যমে ও টেলিফোনে বিশেষ করে এই উপলক্ষে তৈরী "কল সেন্টারের" মাধ্যমে করতে শুরু করেছিলেন, তাছাড়া রাশিয়ার বৃহত্তম শহর গুলিতে আলাদা করে ভ্রাম্যমান টেলিভিশন স্টুডিও খোলা হয়েছে, যেখান থেকে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা সম্ভব হচ্ছে.

পুতিনের উদ্দেশ্য করা বেশীর ভাগ প্রশ্নই সামাজিক সুরক্ষা, গৃহ ও সামাজিক পরিষেবা সংক্রান্ত সমস্যা, দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে. কিন্তু তাঁর সঙ্গে আজ কথা শুরু হয়েছে ৪ঠা ডিসেম্বর দেশে হয়ে যাওয়া লোকসভা নির্বাচন ও সেই বিষয়ে সমাজের প্রতিক্রিয়া নিয়ে. পুতিনের কথামতো, তিনি এই বিষয়ে সন্তুষ্ট যে, অল্প বয়সী সক্রিয় লোকেরা মিটিংয়ে অংশ নিয়েছেন নিজেদের অবস্থান প্রকাশের জন্য. লোকেরা যে দেশের পরিস্থিতি নিয়ে নিজেদের মত প্রকাশ করছেন, আর ততক্ষণ পর্যন্ত এটা খুবই স্বাভাবিক বিষয়, যতক্ষণ পর্যন্ত তাঁরা আইন সঙ্গত ভাবে তারা তা করছেন. যদি এটা – পুতিন প্রশাসনের ফল হয়, তবে এটা ভাল, আমার জন্য এটা আনন্দের বিষয়, বলেছেন প্রধানমন্ত্রী.

লোকসভা নির্বাচনের ফল মূল্যায়ণ করে, ভ্লাদিমির পুতিন তাঁর আস্থা প্রকাশ করে উল্লেখ করেছেন যে, এটা দেশের রাজনৈতিক শক্তি গুলির বাস্তব পরিস্থিতি. একই সঙ্গে তিনি একমত হয়েছেন যে, দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা সংশোধনের অপেক্ষা রাখে. আর এই প্রসঙ্গে পুতিনের নিজের কিছু নির্দিষ্ট প্রস্তাব রয়েছে, তিনি তাই বলেছেন:

"বিরোধী পক্ষের যেন সম্পূর্ণ ভাবে সমস্ত কিছুই নিয়ন্ত্রণের সম্ভাবনা থাকে, যা নির্বাচনের সময়ে ভোট গ্রহণ কেন্দ্র গুলিতে ঘটে থাকে. ওয়েব ক্যামেরা ব্যবহার করে এটা করা সম্ভব. একই সঙ্গে ব্যবস্থা করার দরকার রয়েছে যে, নির্বাচন পরিষদে যেন পার্লামেন্টে উপস্থিত সমস্ত দলেরই প্রতিনিধি থাকে".

ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সরাসরি সওয়াল জবাব চলছে. আগেই বলা হয়েছে যে, এই পর্বের কোন নির্দিষ্ট সময় সীমা নির্ধারিত নেই. গত বছরে এই ধরনের অনুষ্ঠান, যা ১৬ই ডিসেম্বর করা হয়েছিল, তা চলেছিল সাড়ে চার ঘন্টা. এই সময়ের মধ্যে পুতিন উত্তর দিয়েছিলেন ৯০টি প্রশ্নের.