সিরিয়ার নাগরিকেরা পৌর নির্বাচনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছে. গতকাল সিরিয়ায় যে ভোট হয়েছে, তা সে দেশে শুরু হওয়া রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক সংস্কারের সূচনাপর্ব. সিরিয়ার প্রধানমন্ত্রী আদিল সাফার বলেছেন, যে এবারের ভোটদান পর্ব আগের তুলনায় বেশি স্বাধীন ছিল এবং নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষকদের প্রত্যক্ষ গোচরে তা সম্পন্ন হয়েছে. সিরিয়ার সংবাদ মাধ্যমগুলি জানাচ্ছে, যে বাশার আসাদের বিরোধীরা ভোট বানচাল করার চেষ্টা করেছিল, তারা তাদের অনুগামীদের সার্বজনীন ধর্মঘটের আয়োজন করার ডাক দিয়েছিল. তবে শাসক কর্তৃপক্ষের মতে, ধর্মঘট খুব একটা সফল হয়নি. অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বৃটেন দামাস্কাসের উপর বিশ্ব জনসমাজকে চাপ বাড়ানোর আহ্বাণ জানাচ্ছে. গতকাল সোমবার ওয়াশিংটনে বৈঠকের পরে দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদ্বয় হিলারি ক্লিনটন ও উইলিয়াম হেগ এই কথা ঘোষণা করেছেন.