0রাশিয়ায় ১২ই ডিসেম্বর সংবিধান দিবস পালিত হয়. দেশের মুখ্য আইন – বর্তমানে বলবত্ রাশিয়ার সংবিধান গৃহীত হয়েছিল ১৯৯৩ সালে. রাশিয়ার সাংবিধানিক আদালতের সভাপতি ভ্যালেরি জোরকিন সংবিধান দিবস উপলক্ষে “রস্সিইস্কায়া গাজেতা” পত্রিকায় প্রকাশিত তাঁর প্রবন্ধে রাশিয়ার বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে ১৯৯৩ সালের পরিস্থিতির সাথে তুলনা করেছেন. আগে জানানো হয়েছিল যে, গত শনিবার ১০ই ডিসেম্বর মস্কোর কেন্দ্রস্থলে পার্লামেন্টারী নির্বাচনের ফলাফলের সাথে অসম্মত বিরোধীপক্ষের ব্যাপক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল. সভার আয়োজকরা ঘোষণা করেছেন যে, তাঁরা অন্ততপক্ষে ৪০০০০ লোককে সমবেত করতে সক্ষম হয়েছিলেন. এ আন্দোলনটি বিগত কয়েক বছরের সবচেয়ে বড় আন্দোলন ছিল. বিরোধীপক্ষরা মনে করে যে, ৪ঠা ডিসেম্বর রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় দুমার নির্বাচনে নির্বাচনী আইন লঙ্ঘিত হয়েছিল. জোরকিন মনে করিয়ে দেন যে, এখনও ১৯৯০-এর দশকের মতোই তীব্র বিরোধিতা দেখা দিয়েছে, সে সময়ে তখনকার রাষ্ট্রপতি বরিস ইয়েল্তসিনের পক্ষসমর্থক এবং তাঁর বিরোধীদের মাঝে. বিরোধীরা কর্তৃপক্ষের দোষ দিয়েছিল আইন এবং সংবিধান লঙ্ঘনের. জোরকিন লিখেছেন, “সে সময়ে সভা-সমিতির প্রতি আসক্তি দেশের জন্য অতি কঠিন বিপর্যয়ে পরিণত হয়েছিল : ট্যাঙ্ক থেকে পার্লামেন্ট ভবনের উপর গোলাবর্ষণ এবং আইনের প্রতি গভীর অশ্রদ্ধা, অথচ আইনের প্রতি শ্রদ্ধা ছাড়া গণতন্ত্র সম্ভব নয়”. আমার স্থিরবিশ্বাস যে, “আজ আইনের রক্ষা আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি প্রয়োজন”.