আফগানিস্তান থেকে মার্কিনী সেনাবাহিনী প্রত্যাবর্তন করার পরে বৃটেন ঐ দেশে আর কোনো বাড়তি দায়িত্বভার নিতে চায় না. গতকাল অপরাহ্নে এ সম্পর্কে ঘোষণা করেছেন বৃটেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড. তিনি উল্লেখ করেন, যে তার দপ্তর এবং পেন্টাগনের মধ্যে এই প্রশ্নে পাকাপাকি বোঝাপড়া রয়েছে. বর্তমানে আফগানিস্তানে প্রায় ১০ হাজার বৃটিশ সৈনিক মোতায়েন আছে. কয়েকজন বিশ্লেষক অনুমান করেছিলেন, যে আগামী সেপ্টেম্বর মাসে আমেরিকা তার ১লাখ সৈন্যের মধ্যে ৩৩ হাজার সৈন্যকে প্রত্যাবর্তন করিয়ে নেবার পরে লন্ডন হয়তো আফগানিস্তানে তার সেনার সংখ্যা বাড়াতে পারে. কিন্তু বৃটেন এই পূর্বানুমানকে ভ্রান্ত বলে আখ্যা দিয়েছে. পাশ্চাত্যের দেশগুলি আফগানিস্তানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের ভার ক্রমশঃ স্থানীয় নিরাপত্তা শক্তিবাহিনীকে হস্তান্তর করার নীতি অবলম্বন করেছে. গতকাল ন্যাটো জোটের সাধারন সম্পাদক এ্যান্ডার্স ফগ রাসমুসেন সুনিশ্চিতভাবে জানিয়েছেন, যে ন্যাটো ২০১৪ সালের শেষ পর্যন্ত আফগানিস্তানে নিরাপত্তারক্ষার দায়িত্ব আফগানি সেনাবাহিনীকে হস্তান্তর করবে.