বি.বি.সি. জানাচ্ছে, যে ইরানে মার্কিনী ভারচ্যুয়াল দূতাবাস খোলা হয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশ দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, যে এটা সরকারী কূটনৈতিক মিশনের বিকল্প হবে না, বরং ওয়াশিংটন ও তেহেরানের মধ্যে সেতু হয়ে উঠতে পারে. ঐ সাইটে লোড করা একটি ভিডিও ক্লিপে মার্কিনী বিদেশ সচিব হিলারি ক্লিনটন বলেছেন – যেহেতু আমেরিকা এবং ইরানের মধ্যে কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই, তাই আমরা আপনাদের সাথে সংলাপের সুবর্ণ সুযোগ হারিযেছি. ভারচ্যুয়াল সরকার দুই ভাষায় পাওয়া যাচ্ছে – ইংরাজী ও ফার্সী. ১৯৭৯ সালে ইরানে ঐস্লামিক বিপ্লব ঘটার পরে ইরানি ছাত্ররা জোর করে ঢুকে মার্কিনী দূতাবাস দখল করে এবং সেখান থেকে পণবন্দীরূপে ৫২ জন মার্কিনী কূটনীতিবিদকে ধরে নিয়ে যায়. তখনই তেহেরানে মার্কিনী দূতাবাস বন্ধ করা হয়.