আন্তর্জাতিক বিমান- মহাকাশ ও নৌবাহিনীর লিমা - ২০১১ প্রদর্শনীতে রাশিয়ার কোম্পানী গুলি প্রায় প্রায় তিনশ জিনিষ, যার মধ্যে সর্বাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাও রয়েছে, তা দেখাতে নিয়ে এসেছে. এই সম্মেলন চলবে মালয়েশিয়ার লঙ্কাভি দ্বীপে চলবে ৬ থেকে ১০ই ডিসেম্বর.

আধুনিক অর্থনীতির সুফলের কারণে রাশিয়ায় গনতন্ত্রের চর্চা আরও বৃদ্ধি পাবে.দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক সম্মেলনে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ নির্ভরতার সাথে এভাবেই নিজের মতামত জানান.রাশিয়ার নেতার ভাষায়,যে কোন গনতন্ত্রের কিছু বিশ্বাষযোগ্য বস্তু থাকা দরকার যা অর্থনীতি উন্নয়ন, সমাজের নিজস্ব ধারা ও জনগনের স্বাধীনতার সাথে সম্পর্কযুক্ত.

দিমিত্রি মেদভেদেভ সুইজারল্যান্ডে তার সফর কয়েকঘন্টা সংক্ষিপ্ত করেন.যার কারণ হচ্ছে সম্প্রতি মস্কোতে ঘটে যাওয়া ট্রাজিডির ঘটনা.দাভোস সম্মেলনে অংশগ্রহনকারীরা রাশিয়ার জনগন ও প্রেসিডেন্টকে নিজেদের শোকাবহ অনুভূতি জানায়.সম্মেলনের প্রথম পর্বে উপস্থিত সবাই দোমোদেদোভা বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে দাড়িয়ে ১ মিনিট নিরাবতা পালন করেন.

সম্মেলনের আয়োজককারীদের আমন্ত্রনে অংশ নেওয়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র প্রধান ও ব্যাবসায়িক সমাজ রাশিয়ার উন্নয়নে রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের নেওয়া পদক্ষেপের কথা শোনার অধীর আগ্রহে ছিলেন.দিমিত্রি মেদভেদেভ তাদেরকে নিরাশ করেন নি.তিনি দেশের উন্নয়নে নেওয়া ১০টি পদক্ষেপের কথা বর্ননা করেন.

প্রেসিডেন্ট বলেন ‘এই তো কিছু দিন পূর্বে আমি বেসরকারি মালিকদের নিয়ে রাষ্ট্রীয় উদ্দোগে কর্মসূচি শুরু করেছি.আমার নির্দেশে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫ গুন কমিয়ে আনা হচ্ছে.আগামী ৩ বছরের মধ্যে স্বনামধন্য কিছু কোম্পানী দেশের বাংক,জ্বালানী ক্ষেত্র ও কাঠামোগত উন্নয়নে ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করবে এবং এই কাজ তদারকির ও উন্নয়নের জন্য আমরা বিখ্যাত বাংকসমূহের কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা ও তাদের  পরামর্শ গ্রহন করব’.

এই কার্যক্রমগুলো সাফল্যের সাথে সম্পন্ন করার  জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি উত্স হচ্ছে দেশে বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা.প্রেসিডেন্টের গ্রহনকরা বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে একটি হল-সামাজিক তহবিল গঠন.মেদভেদেভ দেশের আধুনিকীকরন প্রকল্পে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের অর্থের ঝুঁকি তাদেরই দিচ্ছেন.

প্রেসিডেন্টের ভাষায়,অর্থনৈতিক ক্ষেত্রের উন্নয়নের এই সুফল অবশ্যই পাওয়া উচিত রাশিয়ার অর্থনীতির.১ জানুযারী থেকে দীর্ঘ মেয়াদকালিন বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সবধরনের আয়কর দেওয়ার প্রথা বন্ধ করা হয়েছে.এছাড়া মস্কোকে একটি বিশ্ব মূদ্রা সেন্টার হিসাবে প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু হয়েছে.

দেশের অভ্যন্তরীন বিনিয়োগ বৃদ্ধির জন্য রাশিয়া একই ধারায় নতুন নতুন অর্থ বাজার তৈরী করতে যাচ্ছে.মেদভেদেভের মতে ‘রাশিয়া অনেক পূর্বেই বিশ্ব বানিজ্য সংস্থার সদস্য হওয়ার জন্য তৈরী ছিল এবং আশা করছি চলতি বছরেই এই প্রকিয়াটি শেষ হবে’.

নতুন প্রযুক্তি সৃষ্টির মধ্য দিয়ে বিনিয়োগ বৃদ্ধির জন্য ইতিমধ্যেই একটি  আন্তর্জাতিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে.প্রধান প্রক্লপসমূহের মধ্যে অন্যতম উদ্ভাবনী কেন্দ্র হচ্ছে ‘স্কোলকোভা’.চলতি বছরে এই কেন্দ্রে অংশগ্রহনকারী প্রধান ও মাঝারি ধরনের ১০টি প্রতিষ্ঠান কার্যক্রম শুরু করেছে.

‘ব্যাবসা উন্নয়নে বাড়তি সুযোগ সৃষ্টি করার জন্য জ্বালানী কার্যকরি ক্ষেত্রে ব্যাপক উদ্দোগ নেওয়া হয়েছে.এর প্রধান কার্যক্রমের অংশ হিসাবে বিশ্ব জ্বালানীতে এর গূরুত্ব অনেক এবং আমরা চাচ্ছি যে,এই ক্ষেত্রটি উদ্ভাবনীর জন্য অন্যতম সহায়ক ভূমিকার কাজ করে.রাশিয়ার জ্বালানী শিল্পে আধুনিকায়ন যা গ্লোবাল দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক সৃষ্টির পথে অগ্রসরে সাহায্য করবে’.

রাশিয়ার বর্তমান সমস্যা সত্বেও যেহেতু একটি উদার  দেশ যা ইতিমধ্যে বিশ্ব সম্প্রদায়ের অংশে পরিনত হয়েছে এবং এই দেশ পরিপূর্ণ আধুনিকায়ন শেষ করবে সেই বিশ্বাস নিয়ে নিজের উন্নয়নে আগামীর পথে এগিয়ে যাবে.