রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় দ্যুমার নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে. ষষ্ঠ লোকসভা নির্বাচনে রাশিয়ার জনগনের অভিমতের সম্পূর্ণ ফলাফল তিন সপ্তাহ বাদে প্রকাশিত হবে সরকারি ভাবে. কিন্তু আগামী রাজনৈতিক মরসুমে কোন দল গুলি পার্লামেন্টে উপস্থিত থাকবে, তাদের সম্বন্ধে কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদের প্রধান ভ্লাদিমির চুরভ সোমবার সকালেই জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বলেছেন:

"প্রাথমিক ভাবে "ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া" ষষ্ঠ লোকসভাতে ২৩৮টি সদস্য পদের জন্য দাবী করতে পারে. রুশ কমিউনিস্ট পার্টি – ৯২টি, এটা আগের বারের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ আসন. "ন্যায় বাদী রাশিয়া" পেতে পারে ৬৪ টি আসন – ৩৮ ছিল আগের বারে. "রুশ লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক" দলের আসন সংখ্যা ৫৬ – ছিল ৪০".

কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের হিসাবে এই খবর দেওয়ার সময়ে গণনা হওয়া ভোটের সংখ্যা ছিল শতকরা ৯৬ শতাংশ. চুরভ উল্লেখ করেছেন যে, সেই সমস্ত ব্যালট, যা নানা কারণে বাতিল করা হয়েছে, তার সংখ্যা প্রায় ১০ লক্ষ, অর্থাত্ সমস্ত ভোটার সংখ্যার প্রায় দেড় শতাংশ. সংখ্যাটি বিরাট – এমনকি "রাশিয়ার দেশপ্রেমী" দল, যত ভোট পেয়েছেন, তার থেকেও বেশী. তাও বিভিন্ন ইউরোপীয় দেশের তুলনায় রাশিয়ার ক্ষেত্রে এই সূচক কম, এই কথা জানানো হয়েছে কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদে.

অন্য কথা হল, নির্বাচনের সময়ে আইন ভঙ্গের বিষয়ে অভিযোগ, যা নিয়ে কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিষদে মনোযোগ দেওয়া হয়েছে. তা আগের বছর গুলির থেকে অনেক কম. এখানে আগ্রহের আরও ব্যাপার হল যে, এই বছরে বিদেশী পর্যবেক্ষকদের তরফ থেকে প্রায় কিছুই সমালোচনা শুনতে পাওয়া যায় নি. ফ্রান্সের প্রতিনিধি ঝাক বইঅন নির্বাচনের ভাল আয়োজনের কথা উল্লেখ করে বলেছেন:

"আমি তিনটি নির্বাচনী কেন্দ্র ঘুরে দেখেছি. তাদের একটি একেবারে ছোট গ্রামে. কিন্তু সর্বত্রই ছিল একই রকমের ভাল উপস্থিতি, জনগনের পক্ষ থেকে আগ্রহ লক্ষ্য করা গিয়েছে".

ইউরোপীয় নিরাপত্তা পরিষদের গণতান্ত্রিক ইনস্টিটিউট ও মানবাধিকার রক্ষা ব্যুরোর ডিরেক্টর ইয়ানেজ লেনারচিচ তাঁর মূল্যায়ণ করেছেন সাবধানে, কিন্তু তাঁর সমগ্র অভিজ্ঞতাই ইতিবাচক, তিনি বলেছেন:

 "আমাদের ১৬০ জন পর্যবেক্ষক ছিল ও আরও ৪০ জন, যাঁরা নিয়মিত ভাবে রাশিয়াতে কাজ করে থাকেন. আমরা কালিনিনগ্রাদ থেকে ভ্লাদিভস্তক পর্যন্ত সারা দেশের বিভিন্ন ভোট গ্রহণ কেন্দ্রেই গিয়েছি. আপাততঃ তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা হচ্ছে. কিন্তু এখনই বলতে পারি যে, নির্বাচন পরিষদ আমাদের সঙ্গে সহযোগিতাই করেছেন. আর ভোট নেওয়া হয়েছে খোলাখুলি ভাবে, স্বাভাবিক পরিস্থিতিকেই".

সদ্য শেষ হওয়া পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন শতকরা ৬০ ভাগ ভোটার. আর প্রায় অর্ধেক "ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া" দলকে সমর্থন করেছে. এটা আগের থেকে কম, কিন্তু দল এখনও আগের মতই রাশিয়াতে সবচেয়ে জনপ্রিয় রয়েছে, এই কথা দেশের রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ উল্লেখ করে বলেছেন:

"দল মর্যাদাময় ভাবেই নির্বাচনে লড়াই করেছে. নিজেদের রাজনৈতিক প্রভাব অনুযায়ী নির্বাচনে ফল পেয়েছে. আর রাষ্ট্রীয় দ্যুমায় আমরা যে ধরনের আসন বিভাগ দেখতে চলেছি, তা দেশের বাস্তব রাজনৈতিক শক্তির প্রতিফলন. আমাদের যে কোন ক্ষেত্রেই বিভিন্ন প্রশ্নে নতুন রাষ্ট্রীয় দ্যুমায় কোয়ালিশন বা দলগত সমঝোতায় আসতে হবে. এটা স্বাভাবিক. এটাই পার্লামেন্টের লক্ষণ. এটাকেই বলা যেতে পারে গণতন্ত্র. আর আমাদের সহকর্মীরা, অন্য সমস্ত দলের নেতারা, বলেছেন যে, তাঁরা এর জন্য তৈরী রয়েছেন. আমি তাই খুবই খুশী যে, এর একমাত্র অর্থ, আমাদের গণতন্ত্র আরও মজবুত হচ্ছে".

শতকরা সাত শতাংশের বাধা পেরিয়ে আসতে পারে নি তিনটি দল – "ইয়াবলকা", "উচিত্ কাজের দল" ও "রাশিয়ার দেশপ্রেমী". প্রসঙ্গতঃ, এটার অর্থ নয় যে, তারা দেশের রাজনৈতিক মানচিত্রে লক্ষ্য করার যোগ্য হয়ে থাকবে না. "আমরা আরও লড়াই করব", - এই কথা বলেছেন ইয়াবলকা দলের এক নেতা গ্রিগোরী ইভলিনস্কি. আর জানিয়েছেন যে, নির্বাচনের ফলাফলের বিরুদ্ধে বিতর্ক করবেন.