প্রায় ৭ হাজার লোক, যাদের যথেষ্ট অংশ আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের লোক, লিবিয়ার প্রাক্তন বিদ্রোহীদের হাতে বন্দী আছে বিনা বিচারে এবং রক্ষাহীন অবস্থায়. এ সম্বন্ধে বৃহস্পতিবার জানিয়েছে "রয়টার" সংবাদ এজেন্সি রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুনের নতুন রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে. এ রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে লিবিয়ার পরিস্থিতি আলোচনার প্রাক্কালে, যা শুরু হবে আগামী সোমবার. এ রিপোর্টে তাছাড়া যন্ত্রণা দানের ঘটনা, গায়ের রঙের ভিত্তিতে নির্যাতন করা, পুরুষ প্রহরায় নারীদের আটক রাখা, জেলে শিশুদের বন্দী রাখার ঘটনার উল্লেখ আছে. তাছাড়া, উল্লেখ করা হচ্ছে যে, সির্ত শহরে, যেখানে ২০শে অক্টোবর গদ্দাফিকে হত্যা করা হয়, সেখানে যেমন উত্খাত শাসক মুয়ম্মর গদ্দাফির পক্ষসমর্থকদের দ্বারা তেমনই অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের য়োদ্ধাদের দ্বারা সামরিক অপরাধের “ভয়ঙ্কর খবর” আছে. লিবিয়ার বেশির ভাগ আদালত বর্তমানে পূর্ণ কর্মক্ষমতায় নেই নিরাপত্তার অভাব এবং বহু বিচারক ও অন্যান্য কর্মীদের অভাবের দরুণ, উল্লেখ করা হয়েছে রিপোর্টে. বান কি মুন লিবিয়াবাসীদের আহ্বান জানান মানব অধিকার শ্রদ্ধা করার এবং প্রতিহিংসা থেকে বিরত থাকার.