রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ ইউরোপে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের রকেট বিরোধী ব্যবস্থা তৈরীর উত্তর হিসাবে যে সমস্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে তার সম্বন্ধে বলেছেন. প্রথম পদক্ষেপ হবে অবিলম্বে কালিনিনগ্রাদের রেডিও নির্ণয় ব্যবস্থায় সামরিক অংশ জোড়া হবে, যা রকেট আঘাত সম্বন্ধে পূর্বাভাস দিতে সক্ষম.

    দিমিত্রি মেদভেদেভ দেশের নাগরিকদের কাছে সেই পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেছেন, যা ন্যাটো জোটের দেশ গুলির ইউরোপে রকেট বিরোধী ব্যবস্থা তৈরী নিয়ে হয়েছে. রাষ্ট্রপতি উল্লেখ করেছেন য়ে, আমেরিকার পক্ষ থেকে ইউরোপে রকেট বিরোধী ব্যবস্থা তৈরী শুরু হয়ে গিয়েছে. এই প্রক্রিয়া গুলির প্রতি ন্যায্য মনোযোগ ও প্রতিক্রিয়া না দিয়ে রাশিয়া পারে না. দেশের প্রধান বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যা ইউরোপে রকেট বিরোধী ব্যবস্থার উত্তর হিসাবে নেওয়া হয়েছে. তিনি বলেছেন:

    "আমার নির্দেশে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় অবিলম্বে কালিনিনগ্রাদের রেডিও নির্ণয় কেন্দ্রে সামরিক অংশ জোড়া লাগাবে, যা রকেট আক্রমণের পূর্বাভাস দিতে সক্ষম. দ্বিতীয়তঃ. রাশিয়ার বায়ু – মহাকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় প্রাথমিক ভাবে স্ট্র্যাটেজিক ভাবে গুরুত্বপূর্ণ পারমানবিক শক্তি এলাকা গুলি আরও শক্তিশালী সুরক্ষা ব্যবস্থার আওতায় আনা হবে. তৃতীয়তঃ, স্ট্র্যাটেজিক ব্যালিস্টিক রকেট গুলি, যা বর্তমানে স্ট্র্যাটেজিক ভাবে গুরুত্বপূর্ণ সামরিক বিভাগে ও নৌবাহিনীতে আসছে, তা রকেট বিরোধী ব্যবস্থা পার হওয়ার মতো সম্ভাবনাময় ব্যবস্থা ও নতুন বেশী ফলপ্রসূ অস্ত্র সম্ভার দিয়ে সাজানো হবে. চতুর্থতঃ, সামরিক বাহিনীর কাছে আমি কাজ দিয়েছি সেই সমস্ত ব্যবস্থা তৈরী করার, যা রকেট বিরোধী ব্যবস্থার তথ্য আহরণ ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাকে ধ্বংস করতে পারে. উপরিল্লিখিত ব্যবস্থা যথেষ্ট হবে, ফলপ্রসূ হবে ও তার জন্য খরচ বেশী হবে না".

    ইউরোপে রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা একত্রে তৈরী করার সম্ভাবনা নিয়ে রাশিয়া ও ন্যাটো এক বছর আগে ঘোষণা করেছিল. ২০১০ সালের নভেম্বর মাসে লিসাবন শহরে রাশিয়া – ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলনে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল রাশিয়া ও জোটের সম্পর্ক নতুন করে তৈরী করার. কিন্তু এর এক বছর পরেও এই বৈঠকের অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একক বোধ তৈরী হয় নি, যে ইউরোপের রকেট বিরোধী ব্যবস্থা ঠিক কি রকমের হবে. ইউরোপে রকেট বিরোধী ব্যবস্থার গঠন নিয়ে রাশিয়া ও আমেরিকার দৃষ্টিকোণ একেবারেই জোড় লাগার মতো হয় নি. রাশিয়া দাবী করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের ইউরোপে রকেট বিরোধী ব্যবস্থা হবে রাশিয়ার সঙ্গে একসাথে ও চেয়েছে খুবই নির্দিষ্ট করে আইন সঙ্গত গ্যারান্টি, যে এই ব্যবস্থা কোন ক্রমেই রাশিয়ার বিরুদ্ধে তৈরী করা হবে না. কিন্তু মস্কো তা পায় নি. দিমিত্রি মেদভেদেভ প্রস্তাব করেছিলেন ইউরোপে নতুন ধরনের সহযোগিতা ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা, তিনি বলেছেন:

"এক বছর আগে ন্যাটো জোট ও রাশিয়া শীর্ষ বৈঠকে লিসাবন শহরে আমি উদ্যোগ নিয়েছিলাম ইউরোপে সম্মিলিত ভাবে রকেট বিরোধী ব্যবস্থা তৈরী করার, যা এলাকা অনুযায়ী দায়িত্ব ভাগের নীতি নিয়ে তৈরী. তার ওপরে, আমরা তৈরী ছিলাম এই নীতিতে পরবর্তী সময়ে ন্যাটো জোটের সহকর্মীদের মনোভাব বুঝে প্রয়োজনীয় সংশোধন করতেও. কিন্তু তা এমন করে করতে যাতে মুখ্য বিষয় তাতে থাকে: ইউরোপে নতুন করে আর বিভাজনের সীমানা তৈরী করার দরকার নেই, বরং প্রয়োজন একক নিরাপত্তার সীমান্ত রেখা, যেখানে সমানাধিকার পেয়ে রাশিয়াও ইউরোপের সঙ্গে আইন সঙ্গত ভাবে অংশগ্রহণের মাধ্যমে তৈরী করতে পারে".

ন্যাটো জোটের নেতৃত্ব এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মস্কোকে জোর দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করছে যে, তাদের পরিকল্পনা রাশিয়ার বিরুদ্ধে নয়. কিন্তু এই কথার পরে আর কোন কাজ করা হচ্ছে না. একই সময়ে ইউরোপের রকেট বিরোধী ব্যবস্থা রাশিয়ার প্রতিবেশী দেশ ও ন্যাটোর সদস্য পোল্যান্ড, রোমানিয়া, তুরস্ক, স্পেন ইত্যাদি দেশে করা হচ্ছে দ্রুত গতিতে.

হোয়াইট হাউসের প্রশাসন ইউরোপের রকেট বিরোধী ব্যবস্থা তৈরীর অধ্যায় অনুযায়ী পরিকল্পনা করে ফেলেছে. আপাততঃ ওয়াশিংটন তাদের ব্যবস্থা বসাবে জাহাজে. ২০১৫ সালের পরে রকেট বিরোধী ব্যবস্থার ঘাঁটি তা স্বত্ত্বেও বসানো হবে পূর্ব ইউরোপের দেশ গুলিতে. অনতি দূর সময়ে নিজেদের রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থার অংশ রাশিয়ার সীমান্ত ও কাছের জল সীমানাতেই বসানো হতে চলেছে. রাশিয়া এই প্রকল্পে অংশ নেবে না, যা ৬ – ৮ বছর পরে রাশিয়ার নিজেরই বাধা দেওয়ার ক্ষমতাকে নষ্ট করে দিতে পারে, এই কথাই বিশেষ করে বলেছেন মেদভেদেভ. বিষয় আরও চরমে উঠলে, রাশিয়া সমস্ত ধরনের সান্তির প্রয়াস থেকে বিরত হবে ও নিরস্ত্রীকরণ ও সমরাস্ত্র নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে আর কোন ধরনের পদক্ষেপ নেবে না. তিনি আরও বলেছেন:

"যদি আগে বলা ব্যবস্থা গুলি যথেষ্ট না হয়, রাশিয়া প্রজাতন্ত্র দেশের পশ্চিমে ও দক্ষিণে আধুনিক আঘাত হানার মতো পারমানবিক অস্ত্র ও ইউরোপের রকেট বিরোধী ব্যবস্থা ধ্বংস করার মতো ব্যবস্থা নেবে. এই রকমের একটি পদক্ষেপ হবে রকেট ব্যবস্থা ইস্কান্দের কালিনিনগ্রাদের বিশেষ অংশে বসানো. আমেরিকার রকেট বিরোধী ব্যবস্থার ইউরোপের অংশের সঙ্গে যথোপযুক্ত এই ধনের আরও ব্যবস্থা প্রয়োজন অনুযায়ী নেওয়া হবে. পরিস্থিতি ভাল না হলে রাশিয়া নিজেদের উপর থেকে নিরস্ত্রীকরণ ও সমরাস্ত্র নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত দায়িত্ব সরিয়ে দেবে. স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক ও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে যেহেতু পারস্পরিক যোগ অলঙ্ঘনীয়, সেই কারণে রাশিয়া স্ট্র্যাটেজিক সমরাস্ত্র নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত চুক্তি থেকেও প্রত্যাহার করে নিতে পারে. এটা এই চুক্তিতেই ব্যবস্থা করা ছিল".

এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ গুলির অর্থনৈতিক সহযোগিতা নিয়ে শীর্ষ সম্মেলনে এই বছরের ১২ই নভেম্বর রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতাদের শেষ সাক্ষাত্কারের পরে মেদভেদেভ ও ওবামা স্বীকার করেছিলেন যে, দুই দেশের মধ্যে ইউরোপের রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে অবস্থান নিকটে আনার বিষয়ে কোনও উন্নতি হয় নি. কিন্তু কোন পক্ষই আলোচনা থেকে বিরত হতে ইচ্ছা প্রকাশ করে নি.

নিজের ঘোষণাতে মেদভেদেভ আবার করে উল্লেখ করেছেন: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ন্যাটো জোটের সঙ্গে ইউরোপের রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে ও তার সঙ্গে বাস্তব ক্ষেত্রে সহযোগিতা সম্বন্ধে আলোচনার দরজা খোলাই আছে. রাশিয়ার ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সময়ও রয়েছে রকেট বিরোধী ব্যবস্থা নিয়ে পারস্পরিক বোঝাপড়ায় আসার, যদি রাশিয়ার নিরাপত্তার প্রশ্নটি বিচার করে দেখা হয়.

দিমিত্রি মেদভেদেভ এর আগেও একাধিকবার উল্লেখ করেছেন: রাশিয়া এক বাছাইয়ের সামনে পড়তে পারে – নিজেদের সামরিক রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরী করা অথবা অস্ত্র প্রতিযোগিতা শুরু করা. রাশিয়ার নেতার কথায় কি অর্থ দেখতে পাবেন ন্যাটো জোটের দেশ গুলি? এবারে তাদের পালা উত্তর দেওয়ার.