0মিশরের বিরোধী পার্টি ও আন্দোলনের সক্রিয় কর্মীরা নিজেদের পক্ষসমর্থকদের মঙ্গলবার ব্যাপক প্রতিবাদ আন্দোলন চালানোর আহ্বান জানিয়েছে. বিরোধীপক্ষ মিশরে সশস্ত্র বাহিনীর সর্বোচ্চ পরিষদের শাসন শেষ করতে চায়. প্রতিবাদের আহ্বান জানিয়েছে জানুয়ারীর গণ-অভ্যুথ্থানের উদ্যোক্তা – যুব আন্দোলন “৬ই এপ্রিল” এবং “বিপ্লবী যুব সঙ্ঘ”. প্রতিবাদকারীদের প্রধান প্রধান দাবির মধ্যে তাছাড়া আছে – অবিলম্বে ইসাম শারাফের সরকারের পদত্যাগ, পূর্ণ অধিকারসম্বলিত জরুরী মন্ত্রীপরিষদ গঠন, যা অন্তর্বর্তী কাল শেষ হওয়া পর্যন্ত দেশের কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণ করবে. মিছিলকারীরা তাছাড়া দাবি করবে, যাতে সরকারের হাতে চলে আসে পূর্ণ রাজনৈতিক ক্ষমতা, যা বর্তমানে সশস্ত্র বাহিনীর সর্বোচ্চ পরিষদের হাতে রয়েছে. মিশরের কিছু কিছু প্রচার মাধ্যমে শারাফ সরকারের পদত্যাগের খবর দেখা দিয়েছে, তবে, এ সম্পর্কে সরকারী খবর এখনও পাওয়া যায় নি. সামরিক মহলের এক উত্স "রয়টার" সংবাদ এজেন্সিকে বলেছেন যে, সামরিক পরিষদ আপাতত শুধু আলোচনা করছে নতুন প্রধানমন্ত্রী পদের প্রার্থীদের নাম. বিগত কয়েক দিনে পুলিশের সাথে মিছিলকারীদের সঙ্ঘর্ষে নিহতদের সংথ্যা পৌঁছেছে ৩৩ জনে. ডাক্তাররা জানাচ্ছেন যে গুলি লেগে মারা যাওয়া লোকেদের শবদেহ রাখা রয়েছে মর্গে. সরকারী খবর অনুযায়ী, নিহত হয়েছে ২৪ জন, আহত হয়েছে ১২০০ জনেরও বেশি. গত রাত কায়রোতে শান্ত ছিল না. বিভিন্ন তথ্য় অনুযায়ী কায়রোর কেন্দ্রস্থলে সমবেত হয়েছিল ২০ থেকে ৩০ হাজার মিছিলকারী. পুলিশের সাথে মিছিলকারীদের সঙ্ঘর্ষ ঘটেছে সুয়েজ খালের এলাকা ইস্মাইলিয়া শহরে এবং উত্তরে আলেক্সান্দ্রিয়া শহরে. মিশরের কর্তৃপক্ষ দেশে পার্লামেন্টারী নির্বাচন শুরু হওয়ার তারিখ বদলাতে চান না, যা নির্ধারিত হয়েছে ২৮শে নভেম্বর. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন লোকেদের মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং সমস্ত মিশরবাসীর অধিকার রক্ষার গ্যারান্টি সুনিশ্চিত করার জন্য মিশরের কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন.