আন্তর্জাতিক পারমানবিক শক্তি এজেন্সি ইরানের পারমানবিক প্রকল্প প্রসঙ্গে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে. সেখানে পাশ্চাত্যের গোয়েন্দাদের সূত্র ধরে জানানো হয়েছে, যে ইরান শান্তিপূর্ণ পারমানবিক পরীক্ষা চালানোর ছলে আসলে পারমানবিক বোমা বিস্ফোরনের যন্ত্র নির্মান করছে এবং পারমানবিক বোমা বিস্ফোরনের কম্পিউটার মডেল তৈরি করছে. তেহেরানের সমালোচকরা এই সমস্ত ঘটনাকে ইরানের তরফ থেকে পারমানবিক বোমা বানানোর প্রচেষ্টা বলে মূল্যায়ন করছে. তবে বহু বিশেষজ্ঞই এই ব্যাপারে তাড়াহুড়ো না করার সুপারিশ করছে.

     এই প্রথমবার আন্তর্জাতিক পারমানবিক শক্তি এজেন্সির রিপোর্টে ইরানের বিরূদ্ধে সরাসরি অভিযোগ হানা হয়েছে. কিন্তু এই সব প্রামান্য এই সাক্ষ্য দেয়, যে পারমানবিক বোমা বানানোর জন্যে ইরানের দখলে অপরিহার্য সমস্তকিছু আছে. তবে তার অর্থ এই নয়, যে ইরান ঐ সব কার্যকলাপ চালাচ্ছে বা ভবিষ্যতে চালাবে. বরং ভাবতে হবে, যে ঐ রিপোর্টকে কি আদৌ বিশ্বাস করা যায়? স্বাধীনতার জন্য মিনার নামক প্রতিষ্ঠানের সভাপতি দিন আহমদের মতে এ ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত.

রিপোর্টে প্রকাশিত কিছু কিছু তথ্য, বোঝাই যাচ্ছে ইরানের প্রতি শত্রুভাবাপন্ন রাষ্ট্রগুলির কাছ থেকে পাওয়া এবং তাদের ভিত্তি হল সেরকমই কল্পনাপ্রসূত, যেরকম আমেরিকা ইরানের বিরূদ্ধে ব্যবহার করেছিল. এবং পরে প্রমান পাওয়া গেছিল, যে সেসব ছিল অতিরঞ্জন. এক্ষেত্রেও সেই একই ব্যাপার ঘটছে এবং এটা অত্যন্ত বিপজ্জনক. আমরা আশা করবো, যে আন্তর্জাতিক পারমানবিক শক্তি পরিষদ ইরানের শত্রুভাবাপন্ন দেশগুলি প্রদত্ত তথ্যাবলীর সত্যতা যাচাই করে দেখবে.

      কুরচাতভের নামাঙ্কিত বিজ্ঞান প্রগতি ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ আন্দ্রেই গাগারিনস্কির ধারনা, যে পাশ্চাত্য দুনিয়া নিজেদের কার্যকলাপ এবং ইরানের বিরূদ্ধে নিত্যনতুন শাস্তিমুলক ব্যবস্থা আরোপ করার ফলশ্রুতিতে ইরানের পারমানবিক শক্তি মজুত করার আকাঙ্খাকে উস্কে দিতে পারে.

ইরানের মতো দেশ, আমার দৃষ্টিভঙ্গী অনুযায়ী পারমানবিক অস্ত্র নির্মানের আকাঙ্খা করতে বাধ্য. ইরাক ও লিবিয়ার নমুনা প্রমান করে, যে য়েসব দেশের কাছে পারমানবিক অস্ত্র নেই, তাদের পরিণতি অত্যন্ত করুন. দুর্ভাগ্যক্রমে পৃথিবী বর্তমানে এমনদিকে মোড় নিচ্ছে, যে যেসব দেশ স্বাধীনতা অর্জন করার চেষ্টা করছে, তারা পারমানবিক অস্ত্র বানানোর প্রয়াস চালাবে. উত্তর কোরিয়ার দিকেই তাকিয়ে দেখুন, ঐ দেশের সাথে সবাই সতর্ক আচরণ করে, কারন খুব সম্ভবতঃ ঐ দেশের কাছে পারমানবিক অস্ত্র আছে.

 

 এমনকি আন্তর্জাতিক পারমানবিক শক্তি এজেন্সির রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পরেও গতকাল ইরান তার পারমানবিক প্রকল্প নিয়ে আলোচনা করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছে. সেইসঙ্গেই তেহেরানের দাবী, যে আলোচনা হতে পারে কেবলমাত্র সাম্য ও পারস্পরিক অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধার ভিত্তিতে.