0আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির ডিরেক্টর জেনারেল ইউকিয়া আমানোর রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির সম্ভাব্য সামরিক ধারা সম্পর্কে এজেন্সি গুরুতর উদ্বেগ প্রকাশ করছে. দলিলে উল্লেখ করা হয়েছে যে, ইরানের অবিলম্বে এজেন্সির সাথে গঠনমূলক সহযোগিতার জন্য প্রস্তুতি প্রকট করা উচিত্ এবং তার পারমাণবিক কর্মসূচির সামরিক ধারা সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্নের ব্যাখ্যা দেওয়া উচিত্. রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, এজেন্সির হাতে বিশ্বাসযোগ্য তথ্য আছে যে, ইরান সামরিক পারমাণবিক কর্মসূচির কাঠামোতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে. এমন তথ্যও বিদ্যমান আছে যা প্রমাণ করে যে, ২০০৩ সালের পরেও ইরানে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবস্থা নিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়া হয়েছে, এবং এ কাজ, সম্ভবত এখনও চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে, বলা হয়েছে দলিলে, যা বুধবার এজেন্সির পরিচালকমন্ডলীর পরিচয়ের জন্য পেশ করা হয়েছে. আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির তথ্য অনুযায়ী, ইরান পারমাবিক অস্ত্র তৈরি সংক্রান্ত কাজকর্ম চালিয়েছে. বিশেষ করে, পারমাণবিক উত্পাদনের জন্য সরঞ্জাম ও বস্তু পাওয়ার উদ্দেশ্যে প্রচেষ্টা চালিয়েছে এবং তার কিছু কিছুতে সফলও হয়েছে. এজেন্সিতে ইরানের প্রতিনিধি আলি আসগর সালতানিয়ে এ রিপোর্টের সমালোচনা করেন এবং তাকে “ঐতিহাসিক ভুল” বলে অভিহিত করেন. তিনি বলেন যে, “এজেন্সির রিপোর্ট ভারসাম্যহীন, অপেশাদারী এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত”. তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, খাস এজেন্সির, এবং তার ডিরেক্টরের এজেন্সির সদস্য দেশ সম্পর্কে ভুল তথ্য প্রচারের অধিকার নেই. তিনি যোগ করে বলেন যে, ইরান নিজের পারমাণবিক কর্মসূচি বিকাশের ন্যায়সঙ্গত অধিকার কখনও ত্যাগ করবে না. সেই সঙ্গে সলতানিয়ে জোর দিয়ে বলেন যে, দায়িত্বপূর্ণ রাষ্ট্র হিসেবে ইরান পারমাণবিক অস্ত্র প্রসার নিরোধের চুক্তির ধারা পালন করে যাবে.