মার্কিনীদের মতে চীনের জাতীয় মুদ্রা য়ুয়ানের কৃত্রিমভাবে করা নীচু বিনিময় হার এবং এই নিযে মার্কিনীদের চীনের সাথে বিতর্ক এই সপ্তাহে হাওয়াইয়ে অনুষ্ঠিতব্য এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সংস্থার অধিবেশনে মুখ্য আলোচ্য বিষয় হতে পারে. ১২-১৩ই নভেম্বর ঐ শীর্ষবৈঠক হবে আমেরিকার হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে এবং আয়োজকের ভূমিকায় আমেরিকা য়ুয়ানের নীচু বিনিময় হারকে মুখ্য আলোচ্য বিষয়ে পরিণত করার সুযোগ বোধহয় ছাড়বে না. এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সংস্থার লক্ষ্য হচ্ছে গোটা অঞ্চলকে অবাদ বাণিজ্যিক এলাকায় পরিমত করা. সেটা মার্কিনীদের জন্য লাভজনক, কিন্তু চীনের জন্য নয়. চীন চীইছে পৃথক পৃথক স্থানীয় এলাকায় এবং পৃথক পৃথক পণ্যের উপর থেকে শুল্ক রদ করতে. হাওয়াইয়ে শীর্ষবৈঠকে রাশিয়ার ভূমিকা বোধহয় প্রথমসারিতে থাকবে না. বরং সামনের বছর, যখন রাশিয়ার ভ্লাদিভস্তোকে পরবর্তী শীর্ষবৈঠক অনুষ্ঠিত হবে, তখন আয়োজক হিসাবে রাশিয়া নিজের শর্ত আরোপ করতে পারবে. তবে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় সংস্থার মঞ্চ এখনো পর্যন্ত শুধুমাত্র আলোচনার জন্যই, ঐ সংস্থার নিয়ন্ত্রণ করার কোনো ক্ষমতা নেই. বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার মতো প্রভাবশালী সংস্থায় পরিণত হতে এখনো অনেক দেরী আছে. অন্যদিকে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় পৃথক পৃথক ভাবে প্রায় ১০০টা অবাধ বাণিজ্যের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে.