ঐস্লামিক বিশ্বে ও দক্ষিণ এশিয়াতে পাকিস্তান রাশিয়ার এক গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী দেশ বলে উল্লেখ করেছেন রশ প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন. এই বিষয়ে তিনি ঘোষণা করেছেন সেন্ট পিটার্সবার্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রেজা গিলানির সঙ্গে সাক্ষাত্কারের সময়ে. বিষয় নিয়ে বিশদ করে লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ.

পাকিস্তান এক প্রভাবশালী মুসলিম দেশ. মুসলিম বিশ্বে তাদের প্রভাব খুবই উল্লেখ যোগ্য. ঐস্লামিক বিশ্বে শুধু পাকিস্তানেরই রয়েছে পারমানবিক অস্ত্র আর শুধু এটাই তার উপরে বিশেষ দায়িত্ব অর্পণ করে. রাশিয়াতেও দুই কোটি মুসলমান বাস করেন. আমাদের দেশ গুলি সংযুক্ত মুসলিম কনফারেন্সের কাঠামোয় সহযোগিতা করে থাকে ও তার সঙ্গে অন্যান্য সংস্থাতেও. বর্তমানের সাক্ষাত্কার ঘটেছে ভ্লাদিমির পুতিনের নিজের শহর সেন্ট পিটার্সবার্গে ও সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার প্রশাসনের প্রধানদের শীর্ষ সম্মেলনের মধ্যেই. পাকিস্তান এই প্রভাবশালী আঞ্চলিক সংস্থায় পর্যবেক্ষক দেশের মর্যাদা পেয়েছে ও চায় আসন্ন সময়ে তার সম্পূর্ণ অধিকার সম্পন্ন সদস্য হতে.

    রাশিয়া ও পাকিস্তানের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতার এই বৈঠকের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়েছে. ভ্লাদিমির পুতিন গিলানির সঙ্গে সাক্ষাত্কারের সময়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন যে, বর্তমানে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমান সঙ্কট পূর্ব সময়ের সমান হয়েছে. কিন্তু তখনই উল্লেখ করেছেন যে, এখনও এর সম্পূর্ণ মূল্য, দুঃখের বিষয় যে, রাশিয়া ও পাকিস্তান দুই দেশের জন্যই খুবই নগণ্য.

    ইউসুফ রেজা গিলানি উল্লেখ করেছেন যে, পাকিস্তান চায় দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে, আর তারই সঙ্গে চায় জ্বালানী শক্তি ও পরিকাঠামো নির্মাণের ক্ষেত্র আঞ্চলিক সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে. ইসলামাবাদ CASA – 1000 প্রকল্পে রাশিয়ার সহকর্মী দেশ, যেখানে মনে করা হয়েছে তাজিকিস্থান ও কিরগিজিয়া থেকে বিদ্যুত শক্তি আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে সরবরাহ করার কথা. রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়ার পক্ষ থেকে এই প্রকল্পে ৫০ কোটি ডলারের সমান অর্থ বিনিয়োগের সম্ভাবনাকে সমর্থন করেছেন. মস্কো শহরে কার্নেগী সেন্টারের বিশেষজ্ঞ পিওতর তোপীচকানভ এই সিদ্ধান্তকে মনে করেছেন রাজনৈতিক ও সেই প্রসঙ্গে মন্তব্য করে বলেছেন:

    "আমাদের আশা জাগে এই কারণে যে মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়াকে সংযুক্ত করার এই CASA প্রকল্পে রাশিয়ার বিনিয়োগের প্রথম অর্থ হল, রাশিয়া রাজনৈতিক ভাবে এই প্রকল্পকে সম্পূর্ণ ভাবে সমর্থন করছে ও সাহায্য করবে সেই ধরনের রাজনৈতিক মত বিরোধকে পার হয়ে যেতে, যা প্রকল্প তৈরীর সময়ে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে. তাছাড়া, এটা রাশিয়া ও পাকিস্তানের মধ্যে সম্পর্ক উন্নতিতেও সাহায্য করবে. সাধারণত রাশিয়াকে এই কারণে দোষী ভাবা হয় যে, দক্ষিণ এশিয়াতে রাজনীতির ক্ষেত্রে করা হয়ে থাকে দিল্লীর দিকে তাকিয়ে. বিগত বছর গুলি দেখিয়েছে যে, এটা একেবারেই সেই রকম নয়. রাশিয়া ও পাকিস্তান পারস্পরিক স্বার্থের উপস্থিতি স্বীকার করেছে, যা কোন ভাবেই প্রতিবেশী দেশ ভারতের নিরাপত্তার জন্য ক্ষতিকারক নয়. এই প্রকল্প দেখিয়ে দিচ্ছে যে, আমাদের সম্মিলিত অর্থনৈতিক স্বার্থ রয়েছে. আর আমরা সম্পূর্ণ ভাবেই তা বাস্তবায়িত করতে পারি. আমি মনে করি যে, এর অনেক ভবিষ্য ত রয়েছে. এই পদক্ষেপ, সন্দেহ নেই যে, সমস্ত দেশের জন্যই লাভজনক হতে চলেছে, যারা এখানে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ভাবে বিনিয়োগ করেছে".

    CASA – 1000 – একমাত্র আঞ্চলিক প্রকল্প নয়. রাশিয়া একই সঙ্গে তুর্কমেনিয়া থেকে আফগানিস্তান হয়ে পাকিস্তান ও ভারতবর্ষ পর্যন্ত গ্যাস পাইপ লাইন প্রকল্প ও আরও বহু কাজে হাত মিলিয়েছে.