শুক্রবারে ফ্রান্সে কান শহরে অর্থনৈতিক ভাবে বিশ্বের বড় কুড়িটি দেশের শীর্ষবৈঠক চালু থাকবে. অর্থনৈতিক ও সামাজিক প্রশ্নগুলিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ছাড়াও, এই বৈঠকের অংশগ্রহণকারীরা নির্দিষ্ট করবেন গ্রীসকে সাহায্যের নিয়মাবলী. বৃহস্পতিবারে সন্ধ্যায় ইউরোপীয় সঙ্ঘের সভাপতি হিরম্যান ভন রমপেই ও ইউরোপীয় পরিষদের প্রধান জোসে মানুয়েল বারোজু সম্মিলিত ভাবে কান শহরে এক ঘোষণা প্রচার করেছেন, যাতে নিজেদের সঙ্কট প্রতিরোধের পরিকল্পিত নীতিতে অবস্থানের সমর্থন সম্বন্ধে বলা হয়েছে. এখানে কথা হয়েছে ঋণ সংক্রান্ত সমস্যা প্রসারের বিরুদ্ধে ভরসার যোগ্য প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সম্বন্ধে. এই লক্ষ্য নিয়ে ইউরোপীয় সঙ্ঘের স্থিতিশীলতা রক্ষার তহবিল বাড়ানো হতে চলেছে প্রায় এক লক্ষ কোটি ইউরো অবধি. গ্রীসের জন্য বিশাল পরিমানে সাহায্যের আয়োজন করা হয়েছে অনেকখানি ঋণ মকুব করে দিয়ে, ব্যক্তিগত বিনিয়োগকারীরাই এই ক্ষেত্রে সাহায্য করেছেন নিজে থেকেই. এখানে পরিকল্পনা করা হয়েছে ইউরোপীয় ব্যাঙ্ক গুলির মধ্যে যোগ রেখে নতুন করে মূলধন বৃদ্ধির, যাতে ব্যাঙ্ক শিল্প ক্ষেত্র সবল হতে পারে. গ্রীসের প্রধানমন্ত্রী গিওর্গিওস পাপানদ্রেউ এই শীর্ষ সম্মেলনে বক্তৃতা দিতে গিয়ে ইউরোপীয় সঙ্ঘের পরিকল্পনায় তাঁর সহমত আবার করে জানিয়েছেন. তিনি দেশের নতুন করে ব্যয় সঙ্কোচের পরিকল্পনা নিয়ে নিজের দেশে তিনি গণ ভোটের আয়োজন বন্ধ করতে চেয়েছেন ও বিরোধী পক্ষের সঙ্গে যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রীসভা গড়তে রাজী হয়েছেন, তবে তিনি পদত্যাগ করতে রাজী হন নি. এই ঋণ সংক্রান্ত প্রস্তাবে বলা হয়েছে যে, গ্রীসকে তাদের ৩৬ হাজার কোটি ইউরো মোট ঋণের প্রায় ১০ হাজার কোটি ইউরো ঋণ মকুব করে দেওয়া হবে ও তার বিনিময়ে কঠোর ব্যয় সঙ্কোচ করতে হবে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ কান শহরে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে, গ্রীসের পরিস্থিতি থেকে ইউরো অঞ্চলে কি হবে তা নির্ভর করছে, আর নতুন করে বিনিয়োগ সমস্যার সঙ্কটের উদয় হওয়াও. তিনি জানিয়েছেন যে, ব্রিকস দেশ গুলির নেতারা ইউরোপীয় মুদ্রাকে কিভাবে সাহায্য করা যায় তা নিয়ে পরামর্শ করেছেন.