0প্যালেস্টাইনী নেতা ইয়াসির আরাফাতের বিধবা স্ত্রী প্রাইভেট “কার্ফোজেনের আন্তর্জাতিক স্কুল” সংক্রান্ত মামলার কাঠামোতে আর্থিক কারসাজি এবং দূর্নীতিতে তাঁর জড়িত থাকা সম্পর্কে টিউনিসিয়ার কর্তৃপক্ষের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন. এ সম্বন্ধে জানিয়েছে আরব প্রচার মাধ্যম. তাঁর কথায়, তিনি সত্যি সত্যিই টিউনিসিয়ার একটি ব্যাঙ্ক থেকে ৩ লক্ষ টিউনিসিয়ার দিনারের (প্রায় ২ লক্ষ ডলার) ঋণ নিয়েছিলেন পাঁচ বছরের জন্য, আন্তর্জাতিক স্কুল গঠনের উদ্দেশ্যে. তবে, তারপরে তিনি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাজকর্ম সংক্রান্ত সমস্ত আর্থিক দায়িত্ব এবং সেই সঙ্গে প্রাপ্ত ঋণের কাগজপত্র টিউনিসিয়ার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির স্ত্রীর নামে হস্তান্তর করা সংক্রান্ত কাগজপত্র স্বাক্ষর করে দেন. প্যালেস্টাইনী নেতার বিধবা স্ত্রী উল্লেখ করেন যে, তাঁর কাছে সমস্ত প্রয়োজনীয় দলিলপত্র আছে, তাঁর সম্পূর্ণ নির্দোষিতা এবং এ মামলায় জড়িত না থাকা প্রমাণ করার জন্য. সুখা আরাফাত টিউনিসিয়ার কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে তাঁর নাম কলঙ্কিত করা ও দোষারোপ থেকে রক্ষার জন্য মানব অধিকার সংক্রান্ত ইউরোপীয় আদালতে আবেদন করার ভয় দেখান যদি তাঁর বিরুদ্ধে উথ্থাপিত অভিযোগ সরিয়ে নেওয়া না হয়. আগে টিউনিসিয়ার আদালত প্যালেস্টাইনী নেতার বিধবা স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করার পরোয়ানা জারি করে এই প্রাইভেট আন্তর্জাতিক স্কুল সংক্রান্ত মামলায় দূর্নীতির সন্দেহে, যে স্কুল তিনি প্রতিষ্ঠা করেন টিউনিসিয়ার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির স্ত্রী লাইলা বেন আলি-র সাথে একত্রে.