রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন গৃহযুদ্ধে বিজয় অর্জন এবং কর্নেল মুয়ম্মর গদ্দাফিকে ধ্বংস করা উপলক্ষে লিবিয়ার জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন. তিনি যোগ করে বলেন, “সমস্ত লিবিয়াবাসীর এখন ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত্. দেশের নির্মাণ এবং পুনর্স্থাপনের সময় এসেছে, পরস্পরের প্রতি প্রতিহিংসার নয়”. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা বলেন যে, গদ্দাফি-র মৃত্যু লিবিয়ার জনগণকে স্বতন্ত্রভাবে নিজেদের ভবিষ্যত্ নির্ধারণের সুযোগ দিয়েছে. তিনি লিবিয়ার নতুন শাসন ক্ষমতাকে আহ্বান জানিয়েছেন সমস্ত লিবিয়াবাসীর অধিকার শ্রদ্ধা করার এবং প্রতিশ্রুতি দেন যে, ওয়াশিংটন ভবিষ্যতেও লিবিয়াকে সাহায্য করবে. একই সঙ্গে, বর্তমান লিবিয়া তাড়াতাড়ি গণতান্ত্রিক ও স্বাধীন রাষ্ট্র হয়ে উঠতে পারবে, এমন মোহ সম্পর্কে ওবামা সাবধান করে দেন. ন্যাটো জোটের প্রধান সচিব অ্যান্ডের্স ফগ রাসমুসেন ঘোষণা করেন যে, গদ্দাফির মৃত্যুর সাথে “লিবিয়ার ইতিহাসে একটি দীর্ঘ ও তিমিরাচ্ছন্ন অধ্যায়” শেষ হয়েছে. এখন লিবিয়াবাসীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া প্রয়োজন, যাতে “উজ্জ্বল ভবিষ্যত্ গড়ে তোলা যায়”, বলা হয়েছে ন্যাটো জোটের ওয়েব সাইটে প্রকাশিত বিবৃতিতে. রাসমুসেন যোগ করে বলেন যে, গদ্দাফির মৃত্যু লিবিয়ায় ন্যাটো জোটের সামরিক অভিযানের শেষ কাছিয়ে এনেছে. তাঁর কথায়, তত্সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে রাষ্ট্রসঙ্ঘ এবং লিবিয়ার অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের সাথে একত্রে.ন্যাটো জোটের প্রধান সচিব তাছাড়া লিবিয়ার নতুন শাসন ব্যবস্থাকে আহ্বান জানিয়েছেন বেসামরিক অধিবাসীদের প্রতি “যেকোনো দমন নিরোধ করার এবং পরাভূত গদ্দাফির বাহিনীর প্রতি ব্যবহারে সংযম প্রকাশ করার”.