জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এই সপ্তাহের শেষে অথবা আগামী সপ্তাহের সূচনায় ইয়েমেনের আভ্যন্তরীন পরিস্থিতি নিয়ে ভোটের আয়োজন করতে পারে. পাশ্চাত্যের একজন উচ্চপদস্থ কূটনীতিবিদ ‘ফ্রান্স প্রেস’ সংবাদসংস্থাকে এই খবর দিয়েছেন. গতকাল নিরাপত্তা পরিষদের ১৫টি সদস্য রাষ্ট্রকে ঘোষণাপত্রের খসড়া অর্পণ করা হয়েছে. উক্ত কূটনীতিবিদ উল্লেখ করেছেন, যে ঐ খসড়া ঘোষণাপত্রে দেশের পরিস্থিতির অবনতি ও হিংসাত্মক কার্যকলাপ বৃদ্ধির সমালোচনা করা হয়েছে. আশা করা যাচ্ছে, যে ঐ খসড়া তেমন কোনো বিতর্কের সৃস্টি করবে না. খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে, যে শিশু ও নারী সহ ইয়েমেনে শত শত মানুষের মৃত্যুতে জাতিসংঘ আক্ষেপ প্রকাশ করছে. আন্তর্জাতিক জনসমাজ দৃঢ়স্বরে ইয়েমেনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের সমালোচনা করছে এবং বিবাদী পক্ষদের অবিলম্বে হিংসাত্মক ও প্ররোচনামুলক কার্যকলাপ বন্ধ করে অস্ত্র সমর্পণ করার আহ্বাণ জানাচ্ছে. জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী ইয়েমেনে বিশৃঙ্খলা চলাকালীন ৮৬০ জনেরও বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছে. বিরোধীপক্ষ দেশের রাষ্ট্রপতি আলি আবদাল্লা সালেহর পদত্যাগ দাবী করছে. তিনি গত ৩০ বছর ধরে শাসনক্ষমতা কুক্ষিগত করে রেখেছেন. সালেহ পদত্যাগ করতে অস্বীকার করছেন না, কিন্তু তার ব্যক্তিগত ও পরিবারের নিরাপত্তার বিষয়ে অতিরিক্ত গ্যারান্টির দাবী করছেন.