মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি কক্ষ (পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ) ২৫শে অক্টোবর মুদ্রার হার মনিটরিংয়ের ব্যবস্থাসংক্রান্ত আইনের খসড়া আলোচনা করবে. এ আইনের গ্রহণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে সেই সব দেশ থেকে আমদানিতে ক্ষতিপুরণমূলক শুল্ক প্রবর্তনের সুযোগ দেবে, যে সব দেশ নিজের রপ্তানিতে অনুদান দেয় জাতীয় মুদ্রার বিনিময় হার কৃত্রিমভাবে কমিয়ে. এ আইনটি প্রকৃতপক্ষে চীনের বিরুদ্ধে নির্দেশিত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতে, যে কৃত্রিমভাবে জাতীয় মুদ্রা – ইউয়ানের বিনিময় হার কমাচ্ছে. আগে, ৩রা অক্টোবর খসড়া আইনের নিজস্ব ধরণ অনুমোদন করে, আর প্রতিনিধি কক্ষে এ আইনের খসড়ার অনুমোদন হবে মুখ্য পর্যায়. প্রতিনিধি ক৭ের বেশির ভাগ সদস্য এ খসড়া আইন সমর্থন করছে. তা গ্রহণের জন্য আহ্বান জানাচ্ছে ডেমোক্রাটরা, প্রতিনিধি কক্ষে যাদের সংখ্যা ১৯২ (৪৩৫ জন সদস্যের মধ্যে), জানিয়েছে রিয়া নোভস্তি সংবাদ সংস্থা. তাদের সাথে যোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ৬১ জন রিপাবলিক্যান. আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এ খসড়া আইনের সমর্থকদের সংখ্যা যদি না কমে এবং কক্ষে পার্টি-নেতারা যদি মত বদলাতে নিজের পার্টির সদস্যদের না বোঝায়, তাহলে খুবই সম্ভব যে, আইন গৃহীত হবে এবং তারপর তা রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের জন্য পেশ করা হবে. এ আইনের গ্রহণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বার্ষিক বাণিজ্যিক ঘাটতি ২৫ হাজার কোটি ডলার কমাতে সাহায্য করবে. একই সঙ্গে, ওয়াশিংটনের কাছে চীনা কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সর্বসম্মত উত্তরে ৪ঠা অক্টোবর  মার্কিনীদের বিরুদ্ধে অবিযোগ তুলেছে বিশ্ব মুদ্রা সমস্যার রাজনৈতিকরণের. চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি মা জাওসিউই বলেন, “এটা চীনা-মার্কিন অর্থনৈতিক সম্পর্ক ও বাণিজ্যের গুরুতর ক্ষতি সাধন করতে পারে”.