সোচি অলিম্পিকের সংগঠণ কমিটি পরিবেশ রক্ষাকল্পের বিকাশের জন্য বিশেষ পদক পেয়েছে. ক্রীড়াঙ্গন পরিচালনার ব্যাপারে আন্তর্জাতিক সংস্থা গত ছয় বছর ধরে লন্ডনে সারা দুনিয়ার ক্রীড়াঙ্গনের ডিজাইনার ও মালিকদের সম্মেলনের আয়োজন করছে. সোচি অলিম্পিকের সংগঠকেরা এই পুরস্কারকে আগাম আস্থা বলে বিবেচনা করে. তারা রাশিয়ায় সুস্থ জীবনধারার প্রচার করতে বদ্ধপরিকর.

     গতবছর ক্রীড়াঙ্গন পরিচালনা সম্মেলনে সেরা ক্রীড়া শহর হিসাবে সিঙ্গাপুরকে চিহ্নিত করা হয়েছিল. এ বছর ঐ পুরস্কার পেয়েছে লন্ডন. অলিম্পিকের বড় বাজেট লন্ডনে সাধারণ মানুষ ও প্রতিবন্ধীদের জন্য বহু স্টেডিয়াম ও সুইমিং পুল নির্মাণ করতে সাহায্য করেছে.

    সবমিলিয়ে ৯টি বিভাগে পুরস্কার বিতরন করা হয়েছে. পরিবেশ সংরক্ষণের বিভাগে এই প্রথমবার পুরস্কার দেওয়া হল. রাশিয়া ‘সোচি-২০১৪’ নামক প্রকল্পের জন্য উক্ত পুরস্কার পেয়েছে. সোচি অলিম্পিকের মুখ্য সংগঠক দমিত্রি চেরনিশেনকোর মতে – এটা আগাম পুরস্কার, কিন্তু তারা রাশিয়ায় সুস্থ জীবনধারা বিকাশের এবং সবুজের মান ধরে রাখার কাজ চালিয়ে যাবেন.

      -দেশে অভূতপূর্ব পরিবেশ সংরক্ষণের মান তুলে ধরার জন্য এটা মহাজাগতিক পদক্ষেপ. এর সুবাদে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ছাড়াও প্রাকৃতিক পরিবেশের উন্নতি হবে.

     সংগঠকেরা অলিম্পিক শুরু হওয়ার অনেক আগেই সব ক্রীড়াঙ্গন প্রতিযোগিতার জন্য খুলে দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, কারন অলিম্পিক শুধু ক্রীড়া প্রতিযোগিতাই নয়. অলিম্পিকের প্রস্তুতির আওতায় কৃষ্ণ সাগরের উপকূলবর্তী ঐ শহরে সাংস্কৃতিক অলিম্পিকেরও আয়োজন করা হয়েছে. ঐ সাংস্কৃতিক উত্সবের মেয়াদ – ৪ বছরঃ চলচ্চিত্রের বছর, নাটকের বছর, সঙ্গীতের বছর, মিউজিয়ামের বছর. এর উদ্দেশ্য হল – সারা বিশ্বকে রাশিয়ার ঐ অঞ্চল সহ সারা দেশের সংস্কৃতির বৈচিত্রের বৃত্তান্ত দেওয়া. সাংস্কৃতিক অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে কেউ কেউ ২০১৪ সালে অলিম্পিক অথবা প্রতিবন্ধীদের অলিম্পিকে অংশ নেবে.

     লন্ডনে আয়োজিত সম্মেলনে সোচি অলিম্পিকের সংগঠণ কমিটির প্রতিনিধিরা স্বেচ্ছাসেবকদের মজুত করার প্রকল্প নিয়েও আলোচনা করেছে. সম্প্রতি সোচিতে স্বেচ্ছাসেবকদের নির্বাচনের কাজ শেষ হয়েছে. অলিম্পিকে ২০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক কাজ করবে. অক্টোবরের শেষে সবচেয়ে প্রতিভাবান ১০৮ জন সহযোগিকে বাছাই করা হবে, যারা লন্ডনে অলিম্পিকের সময় বিদেশী ভাষার অনুশীলন করতে এবং ভাবী কাজের মহড়া দিতে সেখানে যাবে.

 লন্ডনে অলিম্পিক সংগঠকেরা ঠাট্টা করছেঃ আগামী শ্বেত অলিম্পিকের সময় রুশী স্বেচ্ছাসেবকরা বৃটিশদের মতো ইংরাজী বলবে.