0ইস্রাইলের রাষ্ট্রপতি শিমোন পেরেস মিশর ও জার্মানির সরকারকে এবং পৃথকভাবে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রেজেপ তাইপ এর্দোগানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইস্রাইলী সৈনিক গিলাদ শালিতকে মুক্ত করার ব্যাপারে সাহায্য করার জন্য. পেরেস উল্লেখ করেছেন যে, তিনি আনন্দিত ও বিস্মিত হয়েছেন তুরস্ক সরকারের অবস্থানে, যা দু দেশের মতভেদ সত্ত্বেও “রাজনৈতিক দিকের চেয়ে মানবতাবাদী দিকের প্রাধান্য দিয়েছে”. তিনি বলেন, “তা আমাদের দু দেশের জনগণের মাঝে সম্পর্ক বাড়াবে”. এদিকে ইস্রাইলের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রতিনিধি দাভিদ মেইদান, যিনি শালিতের মুক্তি সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনা গ্রুপের নেতৃত্ব করছেন, জোর দিয়ে বলেছেন যে, অর্জিত সমঝোতা সত্ত্বেও “সৈনিকের বাড়ি ফেরার পরেই অভিযান শেষ হয়েছে বলে মনে করা হবে”. মঙ্গলবার ইস্রাইল এবং ইস্লামপন্থী "হামাস" আন্দোলনের মাঝে এ সমঝোতা অর্জিত হয় যে, ২০০৬ সালে অপহৃত শালিতের বিনিময়ে ইস্রাইলীরা এক হাজারেরও বেশি প্যালেস্টাইনীকে মুক্ত করবে, প্যালেস্টাইনের বিশিষ্ট সামরিক কর্মীদের ছাড়া.