তেহেরান আশা করে যে, বুশেরে পারমাণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্রের চালু হওয়া মস্কোর সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ভবিষ্যত্ বিকাশের জন্য মডেল হয়ে উঠবে. এ সম্বন্ধে “রাশিয়া টু-ডে” টেলি-চ্যানেলকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সরকারী প্রতিনিধি রামিন মেহমানপরস্ত. তাঁর কথায়, ইরান “শান্তিপূর্ণ পারমাণবিক ক্ষেত্রের আরও বিকাশের” পরিকল্পনা করছে. তিনি বলেন, “শান্তিপূর্ণ পারমাণবিক ক্রিয়াকলাপের ক্ষেত্রে এ সব প্রকল্পের বাস্তবায়নে আমাদের সাথে সহযোগিতা করা যে কোনো দেশই, সেই সঙ্গে রাশিয়াও সমর্থনযোগ্য”. তাঁর কথায়, বুশেরে পারমাণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্রের প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য “যথেষ্ট বেশি সময় ব্যয় করতে হয়েছিল, তবে যে সব প্রযুক্তিগত সমস্যা বিদ্যমান ছিল তা বিবেচনা করেও আমরা এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত করেছি”. ইরানের “বুশের” পারমাণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্রে বিদ্যুত্শক্তির উত্পাদন চালু করা হয় এ বছরের ১২ই সেপ্টেম্বর, রাশিয়ার বিদ্যুত্শক্তি সংক্রান্ত মন্ত্রী সের্গেই শ্মাতকো এবং “রসআতোম” রাষ্ট্রীয় কর্পোরেশনের ডিরেক্টর জেনারেল সের্গেই কিরিয়েনকোর উপস্থিতিতে.