মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত আবেল আল-জুবৈরকে হত্যার উদ্দেশ্যে ষড়যন্ত্র উদ্ঘাটনের পরে সৌদি আরবের কর্তৃপক্ষ ইরানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে চায়. সৌদি আরব সরকারের প্রতিনিধি আব্দাল্লা আল-শাম্মারি “রয়টার” সংবাদ এজেন্সিকে বলেন, “এ ঘটনার পরে রাজ্যে অনেকেই আশা করবে যে দেশ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে, যার মধ্যে সবচেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ হবে ইরান থেকে নিজের রাষ্ট্রদূতকে ফিরিয়ে আনা”. তাঁর কথায়, সৌদি আরবের বিরুদ্ধে বড় এক প্ররোচনা চালানো হয়েছে. নিউ-ইয়র্কের ফেডারেল আদালতে মঙ্গলবার দুই ইরানীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়েছে ওয়াশিংটনে ইস্রাইল ও সৌদি আরবের দূতাবাসে সন্ত্রাস চালানোর এবং সৌদি রাষ্ট্রদূতকে হত্যা করার চেষ্টার. গ্রেপ্তার করা একজনের মার্কিনী নাগরিকত্ব রয়েছে. ষড়যন্ত্র উদ্ঘাটনের কথা সমর্থন করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান অভিশংসক এরিক হোল্ডার, যিনি এ ব্যাপারে “ইরান সরকারের পৃথক পৃথক দলের উপর” দোষ দিয়েছেন. মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব হিলারী ক্লিন্টন বলেন যে, ষড়যন্ত্র উদ্ঘাটনের পরে ইরান আরও বেশি বিচ্ছিন্নতায় পড়বে. এদিকে ইরানের রাষ্ট্রপতির উপদেষ্টা আকবর জাওয়ানফেক্র্ রাষ্ট্রদূতকে হত্যার উদ্দেশ্যে তাঁর দেশকে জড়ানো সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন.