মস্কো সিরিয়ার বিরোধীদের জন্য মক্কা হয়ে দাঁড়িয়েছে. সোমবার – সিরিয়ার আভ্যন্তরীণ বিরোধী পক্ষের সফরের প্রথম দিন. তাদের মধ্যে রয়েছেন বিভিন্ন ধর্ম নিরপেক্ষ দলের প্রতিনিধিরা, আর তাছাড়া রয়েছেন খ্রীস্টান ধর্ম গুরুরা.

এটা বিরোধী পক্ষের শান্তির মতে চলা লোকেরা. তারা এর মধ্যেই প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করছেন ও সংশোধন আরও সক্রিয় করে বিরোধের অবসানের জন্য প্রচেষ্টা করছেন. অন্য বিরোধী, যারা বর্তমানে বিদেশ থেকে অস্ত্র পাচারের ব্যবস্থা করেছে, তাদের সঙ্গে এদের তফাত. সেই সব অস্ত্র হাতে পড়েছে, বাশার আসাদ প্রশাসন বিরোধী নানা ধরনের চরমপন্থী লোকেদের ও তারাই নানা রকমের প্ররোচনা দিচ্ছে ও সন্ত্রাস করছে. এরই একটি ঘটনা ৫ই অক্টোবরের রাশিয়ার "স্ত্রোইট্রান্সগাজ" কোম্পানীর হোমস্ শহরের শাখায় গুলি বর্ষণ. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির আফ্রিকা মহাদেশের বিশেষ প্রতিনিধি মিখাইল মার্গেলভের মতে, এই ভাবেই বিরোধীরা রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে পশ্চিমের প্রস্তাবিত নিষেধাজ্ঞা সিদ্ধান্তে ভেটো দেওয়া সম্বন্ধে নিজেদের অখুশী হওয়া প্রকাশ করেছে.

রাশিয়ার পক্ষ থেকে এই দলিলকে আটকে দেওয়ার পরে সিরিয়ার চারপাশের পরিস্থিতি, সফরে আসা বাশার আসাদের বিরোধী পক্ষের সঙ্গে আলোচনার একটি অন্যতম বিষয়. এই সম্বন্ধে মনোযোগ আকর্ষণ করেছেন এই প্রতিনিধি দলের নেতা "সিরিয়ার কমিউনিস্ট ঐক্য" দলের জাতীয় পরিষদের সম্পাদক ও জাতীয় স্বাধীনতা ফ্রন্টের প্রধান কাদরি জামিল "রেডিও রাশিয়াকে" দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে, তিনি বলেছেন:

"আমাদের মস্কো সফরের আগে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে সিরিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞায় রাশিয়ার পক্ষ থেকে ভেটো প্রযোগ করা হয়েছে. আমরা সিরিয়ার জাতীয় বিরোধী পক্ষ হিসাবে, অন্যান্য দেশের বিরোধী পক্ষের চেয়ে আলাদা ভাবে এসেছি রাশিয়াকে এই কাজের জন্য ধন্যবাদ জানাতে. এই ক্ষেত্রে ভেটো প্রদানের ফলে – দেশের শান্তিপূর্ণ জনগনের জীবন রক্ষা করা ও আমাদের দেশে অনুপ্রবেশকে আটকানো সম্ভব হয়েছে. ইরাক ও লিবিয়াতে সামরিক অনুপ্রবেশ স্থানীয় শান্তিপ্রিয় মানুষের জন্য এতটাই শোক ও ধ্বংসের কারণ হয়েছে, যা তাদের সমস্যাকেই আরও বাড়িয়েছে ও তাদের উন্নতি আরও কয়েক প্রজন্ম পেছিয়ে দিয়েছে. আমরা চাই, যাতে রাশিয়া সিরিয়ার সঙ্কট সমাধানে নিজেদের অবস্থানকে আরও দৃঢ় করে ও এই দিকেই শুধু এগিয়ে যায়. আজ তাদের অবস্থান সিরিয়ার জনগনের সবচেয়ে গভীর স্বার্থের দিকেই রয়েছে. যদি রাশিয়া বাইরে থেকে অনুপ্রবেশ আটকাতে পারে, তবে সিরিয়ার পরিস্থিতি অনেক দ্রুত ও সহজেই ভালর দিকে যাবে".

মস্কো শহরে সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের লোকেদের বর্তমানের সফর – প্রথম নয়. তারা এর আগে জুন ও সেপ্টেম্বর মাসে এসেছিলেন. প্রসঙ্গতঃ এসেছিলেন বিভিন্ন ধরনের লোকেরা. মস্কো চেষ্টা করছে সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের লোকেদের প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করায় সাহায্য করতে ও কোন একটি সহমতে আসার মতো সিদ্ধান্তে পৌঁছতে, এই কথা "রেডিও রাশিয়াকে" দেওয়া সাক্ষাত্কারে রুশ বিজ্ঞান একাডেমীর আফ্রিকা ইনস্টিটিউটের ভাইস ডিরেক্টর লিওনিদ ফিতুনি বলেছেন:

"এর জন্য সম্ভাবনা রয়েছে. সবচেয়ে যুক্তিসঙ্গত বেরোনোর পথ হল – যদি এই সমস্ত লোকেরা, যাদের মধ্যে যেমন সিরিয়ার প্রশাসনের লোকেরাও রয়েছেন, তারা যদি সবার আগে নিজেদের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক অথবা এমনকি ধর্মীয় উচ্চাকাঙ্খার কথা না এনে, সিরিয়ার জনগনের নিরাপত্তার ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের কথা আনেন. দুই পক্ষেরই চুক্তিতে আসার জন্য আর অন্য কোনও পথ নেই".

মস্কো শহরে কয়েক দিনের মধ্যে আরও একটি আসাদ বিরোধী প্রতিনিধি দলের আসার কথা রয়েছে. এরা সিরিয়ার জাতীয় সভার প্রতিনিধি, যারা দেশের কোন না কোন রাজনৈতিক জোট, ঐস্লামিক দল, লিবারেল, কুর্দ, আসিরিয়, অন্যান্য প্রজাতিদের প্রতিনিধিদের, খ্রীস্টান ও অন্যান্য স্বাধীন রাজনীতিজ্ঞদের দৃষ্টিকোণ প্রকাশ করে থাকেন. রাশিয়ার সিরিয়া বিপ্লব সমর্থন পরিষদের প্রধান মাহমুদ আল- হামজা যেমন ব্যাখ্যা করে বলেছেন যে, মস্কোতে সিরিয়ার জাতীয় সভার প্রতিনিধিরা চেষ্টা করবেন "শান্তিপূর্ণ বিপ্লব" সমর্থন করানোর জন্য. আরও এই জন্য যে, মস্কো যেন দামাস্কাসের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে, কিন্তু তাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে সামরিক অনুপ্রবেশের বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করে.