পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষ চিকিত্সক শকিল আফ্রিদির বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ তুলেছে “আল-কাইদার” প্রধান উসামা বিন লাদেনের অনুসন্ধানে কেন্দ্রীয় গুপ্তচর বিভাগকে সাহায্য করার জন্য. পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষ বিশেষ কমিশন গঠন করেছে দেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিয়াকলাপ পরীক্ষার জন্য. মার্কিনী ক্রিয়াকলাপের ফলেই পৃথিবীর "এক নম্বর সন্ত্রাসবাদীকে" ধ্নংস করা সম্ভব হয়েছিল. শকিল আফ্রিদি বিন লাদেনের লুকিয়ে থাকা শহরে বেআইনী টিকা দানের আয়োজন করেছিল, যাতে বিন লাদেনের ডি.এন.এ-র নমুনা সংগ্রহ করা যায়. আফ্রিদির দেশদ্রোহিতার দোষ যদি প্রমাণিত হয়, তাহলে তার মৃত্যুদন্ড হতে পারে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ডক্টর আফ্রিদিকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য ইস্লামাবাদকে আহ্বান জানিয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইস্লামাবাদের অজ্ঞাতসারে গত মে মাসে পাকিস্তানে লুকিয়ে থাকা বিন লাদেনকে ধ্বংস করার অভিযান চালিয়েছিল. তা দু দেশের মাঝে সম্পর্ককে জটিল করে তোলে.