বিগত কয়েক মাসের প্রধান জটের জাল অবশেষে খুলেছে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী হবেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন এবং "ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া" দলের হয়ে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী তালিকার নেতৃত্ব দেবেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ। কিন্তু কেন দেশের বর্তমান নেতা দ্বিতীয়বার রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালনের সুযোগ নিলেন না?। বেশ কিছুদিন ধরে এই প্রশ্নের উত্তর মেলে নি।সম্প্রতি রাশিয়ার প্রথমসারির টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে দেওয়া সাক্ষাতকারে দেশের রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের মুখ থেকেই এই উত্তর শুনতে পাওয়া যায়।

আপনি কেন নিজের উচ্চাশা সন্তুষ্ট করা থেকে বিরত থাকলেন এবং দ্বিতীয় দফায় রাষ্ট্রপতি পদের জন্য প্রার্থী হলেন না?। এই মূল প্রশ্ন দিয়েই দিমিত্রি মেদভেদেভের সঙ্গে সাক্ষাত্কার শুরু হয়েছিল।উত্তরে মেদভেদেভ বলেছেন, ‘আমার জন্য প্রধান উচ্চাশা বলতে সেই বিষয়বলী বোঝায়, যাতে আমার দেশ ও মানুষের জন্য সুবিধা করে দেওয়া সম্ভব হয়। এটা শুনতে হয়ত কিছুটা ঘোষণা বলে মনে হতে পারে, কিন্তু এটা একেবারেই সত্যি।এর কারণ সম্বন্ধে যা বলতে পারি, তা হল ভ্লাদিমির পুতিনের ও দিমিত্রি মেদভেদেভের, দুজনেরই জন্য রাষ্ট্রপতি পদের প্রার্থীর প্রস্তাব করেছে।"ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া" এর পূর্বে দল পুতিনকে এবং আমাকে বর্তমান সময়ের জন্য ।তাই আমরা দুজনেই একই রাজনৈতিক শক্তির প্রতিনিধিত্ব করছি।

 তাহলে প্রশ্ন আসে: একই রাজনৈতিক দলের হয়ে, কাছাকাছি বিশ্বাস নিয়ে, আমরা তা হলে কি পরস্পরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে বাধ্য?। আমি বহু ধরনের রাজনৈতিক তালিকা তৈরী সম্বন্ধে পড়েছি: ‘কি করে এটা হতে পারে যে, রাজনৈতিক মঞ্চে বেরিয়ে এসে কেন বলা হচ্ছে না: আমরা শেষ অবধি তর্ক করবো, এই তো আমরা এবার প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা করবো!...’ কিন্তু, মনে রাখবেন, বিশ্বের কোন দেশেই তা করা হয় না। একই রাজনৈতিক শক্তির যাঁরা প্রতিনিধিত্ব করে থাকেন, তাঁরাই বেছে নেন, কে কোথায় যাবেন। আমরা কি এই রকম কোন পরিস্থিতির কথা মনে করতে পারি, যেমন, বারাক ওবামা কি হিলারি ক্লিন্টনের সঙ্গে প্রতিযোগিতা শুরু করেছেন?। আর আমি মনে করিয়ে দিচ্ছি যে, তাঁরা দুজনেই রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী নির্বাচনের জন্য ছিলেন, তাঁরা দুজনেই ডেমোক্র্যাটিক দলের এবং তাঁরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, কে কোথায় সবচেয়ে ভাল করতে পারেন, তারই ভিত্তিতে আমরাও সেই রকমের সিদ্ধান্তই নিয়েছি। ভাবতে ভাল লাগছে যে, বর্তমানের রাষ্ট্রপতির প্রতি লোকজনের যথেষ্ট উঁচু বিশ্বাষ রয়েছে, কিন্তু আবার অন্য দিক থেকে, আমি খেয়াল করেছি যে, প্রধানমন্ত্রী পুতিন বর্তমানে আমাদের দেশে সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা ও তাঁর রেটিং কিছুটা বেশী।

প্রায়ই আমাদের কাছ থেকে লোকেরা অপেক্ষায় থাকে, যাতে আমরা কোন একটা সময়ে বিতর্কে জড়িয়ে যাই  ও রাজনৈতিক মঞ্চে সক্রিয়ভাবে বিরোধীতা শুরু করি। আমি তাদের বলতে চাই যে, এটা কখনোই হবে না। আমরা নির্বাচনে জয়ী হতে চাই: যেমন ডিসেম্বর মাসে লোকসভা নির্বাচনে, ঠিক তেমনই মার্চ মাসে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে। শুধুমাত্র নিজেদের উচ্চাশা সন্তুষ্ট করার জন্য নয়’।

আর তা স্বত্ত্বেও,দিমিত্রি মেদভেদেভ উল্লেখ করেছেন যে,রাশিয়ার লোকসভা ও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে কোন রকমেরই আগে থেকে ঠিক করার ব্যাপার নেই। তিনি বলেছেন, ‘নির্বাচন জনগন করে থাকেন, আর এটা ফাঁকা আওয়াজ নয়, একেবারেই তা নয়। যে কোন রাজনৈতিক নেতাই নির্বাচনে উড়ে যেতে পারেন, তাঁর রাজনৈতিক শক্তিও পারে’।

ভবিষ্যতের প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ আশ্বাস দিয়েছেন যে, তাঁর রাজনৈতিক সংশোধনী ও নবীকরণের কাজ বহাল থাকবে, যা তিনি চার বছর ধরে করছেন, তা চলবে মন্ত্রীসভাতেও। কোন জমে থাকার মত ব্যাপার হবেই না বলে উল্লেখ করেছেন দিমিত্রি মেদভেদেভ।আসন্ন প্রাক্ নির্বাচনী লড়াই নিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেছেন, ‘তা হবে খুবই তীক্ষ্ণ, কঠোর, কিন্তু আশা করবো যেন স্বচ্ছ হয়। আর এর জন্য রয়েছে সমস্ত রকমের আইনসঙ্গত ব্যবস্থা’।