শনিবার রাশিয়ার রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচিত একটি ঘটনার সমাপ্তি ঘটেছে।রাশিয়ার ক্ষমতাসীন দল ঐক্যবদ্ধ রাশিয়ার প্রাক্ নির্বাচনী সম্মেলনে  ঘোষণা করা হয় যে, প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ পার্লামেন্ট নির্বাচনের জন্য প্রার্থীদের তালিকার নেতৃত্ব দিবেন ও সেই সাথে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন । অন্যদিকে রাশিয়ার বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমীর পুতিন ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া দলের হয়ে আগামী ২০১২ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নিবেন।এই সংবাদের পরই রাশিয়ার অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর শীর্ষ নেতারা বিভিন্ন মন্তব্য করেছেন।কমিউনিস্টদের নেতা গেনাদী জিউগানোভ বলেন,এটি কোন পরিবর্তনই বয়ে আনবে না,লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক দলের নেতা ভ্লাদিমীর জিরোনোভস্কী বলেন,অনেক আগেই তিনি বিষয়টি জানতেন এবং  ন্যায়বাদী রাশিয়া দলের নেতা সেরগেই মিরানোভ বলেন,ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া তাদের প্রধান রাজনৈতিক বিরোধী দলের স্থানে রয়েছে।

পার্লামেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে রাশিয়ার রাজনীতির মাঠে লড়াই শুরু হয়েছে। দুমার আসন কক্ষের নিয়ে যে ৩টি দলের মাঝে মূল প্রতিদন্ধিতা হবে তা হচ্ছে- ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া(ইআর),কমিউনিস্ট (কেপেআরফ) ও ন্যায়বাদী রাশিয়া(এস আর)।গত শনিবার এই ৩টি দলই তাদের প্রাক্ নির্বাচনী সম্মেলন করেছে যেখানে আগামী নির্বাচনের জন্য সুনির্দিষ্ট কার্যক্রম ও নির্বাচনের প্রার্থীদের তালিকা ঘোষণা করেছে।’রাজনীতি’ ফন্ড  নামের সংগঠনের প্রেসিডেন্ট বিয়াচেসলেভ নিকোনেভ মনে করেন যে,মেদভেদেভ ও পুতিন অবশ্যই অত্যন্ত বিচক্ষনতার সাথে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং তা সমাজের জন্য মঙ্গলই বয়ে আনবে।তিনি বলছেন, ‘এই ধরনের যে পরিবর্তন আসবে তা হয়ত অনেকে চিন্তাও করেন নি।তবে হ্যাঁ,এর ফলে রাশিয়ার রাজনীতি এখন অনেক বেশী আলোচিত হবে।একই সাথে আমি মনে করি, এই বিষয়টি বিরোধী দলগুলোর জন্য অনেক বড় ধাক্কার’।

 

ঐক্যবদ্ধ রাশিয়ার নির্বাচনী আলোচ্য সূচির মধ্যে থাকছে সামাজিক রাজনীতি ও অর্থনীতির আধুনিকায়ন।ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া দলের প্রধান বিরোধী দল এবার কমিউনিস্ট (কেপেআরফ)।এমনই মনে করছেন ক্ষমতাসীন দল ঐক্যবদ্ধ রাশিয়ার জাতীয় কমিটির সেক্রেটারী সেরগেই নেভেরোভ।তিনি বলছেন, ‘মোট যে ৮টি দল পার্লামেন্ট নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছে তাদের মধ্যে বরাবরের মত এবারও আমাদের প্রধান বিরোধী দল হচ্ছে কমিউনিস্ট দল।তাদের রয়েছে নির্দিষ্ট কিছু ভোটার এবং সর্বদাই তাদের থাকে বিরোধী মনোভাব’।

ইতিমধ্যে কমিউনিস্ট দলের উদ্দোগে(কেপেআরফ) তাদের প্রাক্ নির্বাচনী সম্মেলন শেষ হয়েছে এবং দুমার নির্বাচনের জন্য প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করেছে।দলের শীর্ষ নেতা গেনাদী জিউগানোভ ওই দিনের ভাষণে বলেছেন,আমাদের নির্বাচনের প্রধান লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে, ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া দলের বিপক্ষে বিজয়ী হওয়া।অন্যদিকে জাতীয় স্ট্রাটেজিক ইস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট মিখাইল রেমিজোভ মনে করেন যে,কারণে- অকারণে সরকারের সমালোচনা না করে প্রকৃতপক্ষে তাদের অন্যতম প্রধান বিরোধী দল হয়ে অংশ নেওয়া উচিত।তিনি বলছেন,এ ‘ই দলের ফলাফল যথেষ্ট ভাল।বর্তমান সরকারের কার্যক্রমে যারা সন্তুষ্ট নয় তারাই কমিউনিস্ট দলের পক্ষে ভোট দিতে পারে।তবে তারা আমাদেরকে নতুন কোন মুখ বা নতুন কোন আশাবাদ দিতে পারছে না।আশা করা হচ্ছে যে,অর্থনীতিতে মন্দার আভাষ থাকায় তাদের রেইটিং কয়েক ধাপে বেড়ে যাবে।কিন্তু সেই অনুযায়ি দলের পক্ষ থেকে তেমন কেন কার্যক্রমই গ্রহন করা হচ্ছে না যা তাদের এই সম্ভাবনাকে আরও বৃদ্ধি করতে পারে’।

যদি ন্যায়বাদী রাশিয়ার(এসআর) কথা বলা হয় তবে সেখানে দলের মধ্যে সংকট দেখা যাচ্ছে।ন্যায়বাদী রাশিয়ার শীর্ষ নেতা ও ফেডারেল পরিষদের স্পিকার সেরগেই মিরানোভের ইতিমধ্যে পদত্যাগ করেছেন এবং দলের অন্যান্য শীর্ষ নেতারাও দল ছেড়েছেন যা এই সংগঠনকে আরও নাজুক করে দিয়েছে।দলের নির্বাচনী সম্মেলনে  যে ৩টি বিষয় নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্তের কথা বলা হয়েছে তা হচ্ছে-দরিদ্র, দুর্নীতি ও ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া দলের একচেটীয়া রাজনৈতিক কার্যক্রমের বিরুদ্ধে সংগ্রাম।দলটির আগামী দুমার নির্বাচনে কি ফলাফলা অপেক্ষা করছে সেই বিষয় জাতীয় স্ট্রাটেজিক ইস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট মিখাইল রেমিজোভ বলেন, ‘দলের ফলাফল সম্পর্কে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না।ধরা যেতে পারে এর ভাগ্যে ততটা ইতিবাচক বা বিরাট কিছু অপেক্ষা করছে না।সেই সাথে আমাদের রাজনৈতিক অঙ্গনের জন্য যে বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ তা হল  এই দলটি কি আদো এখন পর্যন্ত প্রধান বিরোধী দলের মর্যাদা পেয়েছে?।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে,এবারের পার্লামেন্ট নির্বাচন কোন ক্রমেই সহজভাবে হবে না।তবে সব কিছু এখনই পরিষ্কার করে বলা  যাচ্ছে না।