কিভাবে আফগানিস্তানের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি বুরহাউদ্দিন রাব্বানিকে হত্যা করা সম্ভব হয়েছিল, সেই ব্যাপারে তালিবানেরা বিষদে জানিয়েছে. তালিবানদের প্রতিনিধি জাবিনুল্লার বক্তব্য অনুযায়ী, তারা রাব্বানিকে জালে জড়াতে সমর্থ হয়েছিল. রয়টার সংবাদসংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে তালিবান গোষ্ঠীর ঐ সদস্য জানিয়েছে, যে গোটা একটা দল গঠন করা হয়েছিল.  ঐ দলের দায়িত্ব ছিল আফগানিস্তানে যুদ্ধ বন্ধ করার ব্যাপারে যেন রাব্বানির সাথে আলোচনার আয়োজন করা. কিন্তু দলটির আসল মতলব ছিল আফগানিস্তানের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতিকে খতম করা. যখন রাব্বানি তাদের প্রতিনিধিকে আলিঙ্গন করতে এগিয়ে আসেন, তখন সন্ত্রাসবাদীটি তার দেহে লাগানো বিস্ফোরক পদার্থের বিস্ফোরণ ঘটায় এবং রাব্বানি ও তার চারজন দেহরক্ষীকে হত্যা করে. জাবিনুল্লা ব্যাখ্যা করে বলেছে, যে ঐ দুই তালিবানের প্রায় ঘনঘনই রাব্বানির সাথে দেখা হতো, আর তাই রাব্বানির তাদের উপর আস্থা ছিল. তালিবানরা ঘোষণা করেছে, যে তারা তাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের লোকেদের হত্যাকান্ডের কাজ চালিয়ে যাবে. ইতিপূর্বে তারা বর্তমান রাষ্ট্রপতি হামিদ কারজাইয়ের ভাইকে এবং কাবুল প্রশাসনের সমর্থক দাউদ নামক এক ফিল্ড-কম্যান্ডারকে হত্যা করে. রাব্বানি ১৯৯২ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপ্রধানের পদে আসীন ছিলেন.