২০১৪ সালের সোচী অলিম্পিক আড়াই বছর বাকি থাকতেই এরই মধ্যে স্পনসরের কাছ থেকে পাওয়া অর্থের হিসাবে বিশ্বের সবচেয়ে সফল বলে প্রমাণিত হয়েছে ও বেইজিং অলিম্পিকের রেকর্ড ভেঙে এর মধ্যেই ১২০ কোটি ডলারের বেশী পেয়েছে.

    বিশেষজ্ঞরা জানেন যে, গরমের তুলনায় শীত অলিম্পিক স্পনসরদের কাছে কম জনপ্রিয়, কারণ এই অলিম্পিক কম সংখ্যক লোকই দেখে থাকেন. কিন্তু সোচীর শীত অলিম্পিক এখনই ২০০৮ সালের বেইজিং এর গরম অলিম্পিকের সমস্ত রেকর্ড ভেঙে ফেলেছে. মনে রাখা উচিত্, সেই অলিম্পিক বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কটের আগেই হয়েছিল. সেই বছরে সমস্ত জাতীয় স্পনসরদের কাছ থেকে পাওয়া গিয়েছিল একশো কুড়ি কোটি ডলার. আর ২০১৪ সালের শীত অলিম্পিকের এখনই সহকর্মী সংস্থার সংখ্যা ১৮, তার মধ্যে গাজপ্রম, রসনেফত, রুশ রেল পথ কোম্পানী, সবের ব্যাঙ্ক ইত্যাদি রয়েছে. আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সারা বিশ্ব জোড়া সহকর্মীদের মধ্যে সোচী অলিম্পিকের জন্য আলাদা করে ইতিমধ্যেই চুক্তি সই করেছে কোকা কোলা, জেনেরাল ইলেকট্রিক, ওমেগা, প্যানাসোনিক, প্রোক্টর অ্যান্ড গ্যাম্বল, সামসুঙ্গ ও ভিসা ইত্যাদি কোম্পানী.

    এই ধরনের বিশাল বিনিয়োগ – এই অঞ্চলের ভারসাম্য বজায় রেখে স্থায়ী উন্নতির ফল. সেখানে ২২৯টি প্রকল্প তৈরী হয়েছে ও হচ্ছে, যেগুলি ৬টি নির্দিষ্ট দিকে ভাগ করা হয়েছে: সুস্থ জীবন যাত্রা, প্রকৃতির সঙ্গে সহমত, বন্ধন হীণ বিশ্ব, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, আধুনিক প্রযুক্তি, সংস্কৃতি ও জাতীয় মূল্যবোধ.

    ২০১৪ সালের অলিম্পিক বহু বিষয়েই অন্যতম, তাই বিনিয়োগকারীরা এখানে অর্থ দিচ্ছেন, এই কথা মনে করেছেন রাশিয়ার ক্রীড়া ক্ষেত্র আয়োজন সবার উপ সভাপতি লিওনিদ জেসতিয়ান্নিকোভ, তিনি বলেছেন:

    "এটি একমাত্র অলিম্পিক, অন্ততঃ শীত অলিম্পিক, যেখানে প্রতিটি জায়গাই তৈরী করা হচ্ছে একেবারে শূণ্য থেকে. ভ্যাঙ্কুভার শহরে শুধু একটি স্কেটিং রিঙ (ওভাল) তৈরী করা হয়েছিল. অন্যান্য জায়গা ছিল অনেক আগেই তৈরী. এটি প্রথম বিষুব রেখার নিকটবর্তী অঞ্চলে শীত অলিম্পিক. এই ধরনের জায়গা যেখানে খেলাধূলা ও পর্যটন কেন্দ্র বৃদ্ধি পাচ্ছে, যেখানে একই সঙ্গে সমুদ্র ও বরফ, খুব একটা বেশী নেই. ম্যারিয়ট ও হিলটন গ্রুপ এখানের স্কি রেঞ্জের কাছেই হোটেল খোলার বিষয়ে চুক্তি করেছে".

    বিশ্বের অভিজ্ঞতা থেকে দেখা গিয়েছে এই ধরনের বিশ্ব মানের খেলাধূলা, যেমন অলিম্পিক, আঞ্চলিক ভাবে অর্থনৈতিক উন্নতির কাজে লাগে এক ধরনের অনুঘটকের মতই, যা দেশের কাজে আসে দীর্ঘস্থায়ী ভাবেই, তাই লিওনিদ জেসতিয়ান্নিকোভ যোগ করেছেন:

    "অর্থনীতিতে ও ব্যবসায় কোন রকমের অর্থনৈতিক ফল পাওয়া যায় না, যদি না তার জন্য কেউ বিনিয়োগ করে. এখন মানুষের প্রশিক্ষণে, জায়গা ও পরিকাঠামোর উন্নয়নে বিনিয়োগ করা হচ্ছে. এটা এখনই ফল দিচ্ছে. যেমন, সোচীতে এখনই রাস্তায় কাউকে ধূমপান করতে দেখা যায় না. অলিম্পিকের থেকে লাভও অনেক. তা দেখাই যাচ্ছে".

সোচী – ২০১৪ প্রকল্প রাশিয়াকে এগিয়ে যাওয়ার কাজে এক বিশাল পদক্ষেপ নিতে সাহায্য করেছে, এই কথা মনে করেছেন রুশ জাতীয় অলিম্পিক কমিটির সভাপতি আলেকজান্ডার জুকভ. "স্বেচ্ছাসেবক আন্দোলনে উন্নতির কারণে, বন্ধন হীণ বিশ্ব প্রকল্পের জন্য, সবুজ মান বজায় রাখা শুরু করার জন্য আমরা আজই দেখতে পাচ্ছি যে, দেশকে এই ক্রীড়া কি বিপুল ইতিবাচক উত্তরাধিকার দিচ্ছে, আর স্থিতিশীল উন্নয়নের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার জন্য এই খেলার ক্ষমতা সেই কাজের জন্যই সবচেয়ে বেশী ব্যবহার করা সম্ভব হবে, যাতে ইতিবাচক পরিবর্তন, সেই দিক গুলির সঙ্গেই সোচীর মতই সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে".