অন্তর্বর্তী কালীণ জাতীয় পরিষদের এক নিকট উত্স "রেডিও রাশিয়াকে" জানিয়েছে যে, বহু আলোচনার পরে প্রাথমিক ভাবে একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র মন্ত্রীর পদে বর্তমানে অন্তর্বর্তী কালীণ পরিষদের নেতা মাহমুদ জিব্রাইল কেই নির্বাচন করেছে. কিন্তু একই সঙ্গে দুটি পদেই তাঁর নির্বাচন পরিষদের মধ্যে বিতর্কের সৃষ্টি করেছিল. সিদ্ধান্ত হয়েছে মন্ত্রীসভায় পদের সংখ্যা ৩৪ থেকে কমিয়ে ২২ করা হবে, কিছু পদ দেওয়া হয়েছে যুব আন্দোলনের প্রতিনিধিদের, যারা অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের পক্ষে বিগত কয়েক মাস ধরে সংগ্রাম করেছে. আসন্ন বুধবারে নতুন প্রশাসনের তালিকা সরকারি ভাবে ঘোষণা করা হতে পারে  জাতীয় পরিষদের নেতা মুস্তাফা আবদেল জলিলের নিউইয়র্ক থেকে দেশে ফেরার পরে.